Press "Enter" to skip to content

আরশী…

নিজেদের সাথে সঙ্গীত বা সুরের প্রতিচ্ছবিকে অনুভূত করেই আরশী এর পথচলা। সঙ্গীতের প্রতি ভালোবাসা আরশী পরিবারকে একত্রিত করে সবসময়। ২০১২ এর মাঝামাঝি কিছু টগবগে তরুন শুরু করে মেলোডি হার্ড রক ধাচের এই ব্যান্ড। বিভাগীয় শহর, রাজশাহীতে ব্যান্ড নিয়ে পথচলাতে পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি তাদের। বর্তমান রাজশাহী বিভাগীয় শহরে এক কথায় রাজত্য করছে ব্যান্ড আরশী।
ছোটবেলা থেকেই সঙ্গীতের প্রতি চরম আসক্তি নাঈমের, সেই ছোট বেলা থেকে সঙ্গীত চর্চা শুরু- সঙ্গীতের প্রতি ভালোসাতে ২০০২ সালে বংলাদেশ জাতীয় শিশু শিল্পী পুরস্কার পায় সে। ২০১০ সাল থেকে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্যাটিলাইট চ্যানেলে বিভিন্ন প্রতিযোগীতায় অংশ গ্রাহণ করে সে ভালো স্থানেও পৌছে। কিন্তু ভাগ্যের উপর কার হাত, বিদ্ধস্ত প্রায় অবস্থাতেও হাল না ছেড়ে পরিশ্রম চলতেই থাকে।
একটা ব্যান্ড র্ফম করার চিন্তা অনেক দিন থেকেই ভেবে আসছিল নাঈম। কিন্তু কখনোই গুছিয়ে উঠতে পারেনি। মন খারাপ করে প্রায় সময়ই সময় কাটাত পদ্মা নদীর পারে। আড্ডা দিত পরিচিতদের সাথে। প্রায় দেখতো কিছু ছেলেরা মিলে গিটার নিয়ে দল বেঁধে সুন্দর সুন্দর গান করছে। তারও মন চাইতো তাদের সাথে গান করার জন্য। এবং একদিন বসেও গেল, পরিচয় হলো রাতুল তার আরাফাত এর সাথে। রাতুল আরাফাত খুব সুন্দর গিটার বাজায় আর নাইম তাদের গিটারের ছন্দে মুগ্ধ হয়ে কন্ঠে সুর তোলে। তারপর থেকে নাঈম, রাতুল, আর আরাফাত এর প্রতিদিনের তালিকা।
একদিন সবাই সিদ্ধান্ত নেয় ব্যান্ড ফর্ম করবে। যেন তেন করে নয় সফলতার শিখরে পৌছানোর জন্যই করতে হবে ব্যান্ড ফর্ম নতুবা নয়, এই প্রত্যয়ে গোঁছাতে শুরু করে নিজেদের, দলে যোগ দেয় নাঈমের সংগীত বিদ্যালয়ের সহপাঠি রসি। নিজেদের সাথে সংগীত বা সুরের প্রতিচ্ছবি কে অনুভূত করেই আরশী নামকরন করা হয় ব্যান্ড এর। রাতুল আর আরাফাত গিটার বাজাতো রসি গান করতো, আর নাঈম ড্রামস বাজাতো এবং গানও করতো। কিন্তু এভাবে সমস্যা হচ্ছিলো ভালোকরে প্রাকটিস করতে। একদিন প্রাকটিস করতে করতে হঠাৎই আসে এক বড় ভাই রাজশাহী শহরের ব্যান্ড প্রতিষ্ঠার জনক রব নেওয়াজ ভাই অসম্ভব দারুন একজন ড্রামার।
তিনি তাদের ব্যান্ড দল গুছিয়ে দেয়ার ভার নিলেন, আর অবিশ্বাস্য ভাবে উন্নতির ধারা বইতে শুরু করলো। তাদের ব্যান্ডে যোগ দিলেন ড্রামার হয়ে আর্শি এবং ব্যান্ডের গতি যেন ফুল গিয়ারে চলতে লাগলো। সফট রক, হার্ড রক, মেলোরক, অল্টার্নেটিভ রক, যেন আরশীর সাথে ছেয়ে গেল গোটা রাজশাহী শহর। আরাফাত উচ্চ শিক্ষার জন্য ঢাকা চলে গেল। মহাসমস্যায় আরশী, রাতুল নিয়ে আসলো তার সহপাটি প্রদিপকে রিফ গিটার বাজানোর জন্য, আরো যোগ হলো বেজ গিটার শিহাব এরপর মুগ্ধ আর এখন মারুফ সমানে স্টেজ কাঁপাচ্ছে। নেওয়াজ ভাই এর কথামত এবার খোঁজ শুরু হলো অলটার্নেটিভ একজন ড্রামারের, ইনভাইট করলাম অন্য আরেক ব্যান্ড দলের ধিরাজকে, ধিরাজ পরিপুর্ন করলো ব্যান্ড আরশীর পরিবার। তারপর থেকে কোনদিন পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি তাদের। ২১ জুন ২০১২ প্রথম এফ,এম লাইভ দিয়ে পরিচিতি লাভ করে রাজশাহীর মানুষের কাছে। উল্লেখযোগ্য কনসার্ট এর মধ্যে রয়েছে:
১. ইউনিভার্সিটি ডে (বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস) পারফর্মার ব্যান্ড (জেমস্ “নগরবাউল”/আরশী)
২. কনসার্ট ফর লাইফ (রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় স্টেডিয়াম) পরফর্মার ব্যান্ড (সোলস্/এস,আই টুটুল/কর্ণিয়া/আরশী/মিলা)
৩. হিউম্যান এইড কনসার্ট (রাজশাহী জেলা স্টেডিয়াম) পরফর্মার ব্যান্ড (এল,আর,বি/দুরবীন/আরশী)
৪. জয় বাংলা কনসার্ট (রাজশাহী টেনিস কমপ্লেক্স) পরফর্মার ব্যান্ড (ওল্ড স্কুল,আরশী)
এভাবেই এাগয়ে চলছে আরশী…….
ব্যান্ডের মেম্বারদের মধ্যে রয়েছে
নাইম- ভোকাল
রসি- ভোকাল
রাতুল- ভোকাল, লিড গিটার
প্রদীপ- রিফ গিটার
মারুফ- বেজ গিটার
ধিরাজ- ড্রামার
পিয়াস- লিরিসিষ্ট
রব নেওয়াজ- ড্রামার/উপদেষ্টা।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: