রাজিব আহমেদ এবং আসিফ আকবর এর মৃত্যুকাব্য…

“কেউ ফেলোনা অশ্রু ভেঙ্গে
শীর্ষবিন্দু জল,
একলা ছিলাম একলা রবো
একলা আমার দল।
কলেমা পড়ো কানে কানে,
সুরা পড়ো মনে মনে,
শূন্য হাতে পা ফেলেছি,
খোদার মাঝি চল।
একলা ছিলাম, একলা রবো,
একলা আমার দল।”
– রাজিব আহমেদ এদেশের আধুনিক গানের এক নন্দিত গীতিকবি। এক সময়ে সারা বাংলা কাপানো আইয়ুব বাচ্চুর বিখ্যাত চিরসবুজ গান ‘এক আকাশ তারা’ জেমস এর সেই ‘পাগলা হওয়া’ আসিফ আকবর এর ‘একদিন আমি বৃদ্ধ হবো’, ‘তুই যদি মোর চন্দ্র হতি’, ‘রূপের বন্যা’, ‘জানরে ‘, ‘ আমার একা একা লাগে ‘, ‘উড়ো মেঘ’, ‘আলিঙ্গন’ সহ অনেক জনপ্রিয় গানের স্রষ্টা রাজিব আহমেদ। নিজের ভিন্ন চিন্তাধারায় সবসময় রাজিব আহমেদ নিজের মত করে গান লিখেন যা শ্রোতাদের নিকট আলাদা কিছু মনে হয়। যারা রাজিব আহমেদ কে জানেন তারা মনে করেন রাজিব আহমেদ মানেই ভিন্নসাধের গান। তারই ধারাবাহিকতায় রাজিব আহমেদ ও আসিফ আকবর এর মৃত্যু ভাবনা।
জন্মের পর প্রত্যেকটি মানুষকে মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে। সেই স্বাদ গ্রহণ করার আগে জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী আসিফ আকবর মৃত্যুর পরবর্তী ভাবনা নিয়ে সম্প্রতি একটি গান গাইলেন। গানটি লিখেছেন রাজিব আহমেদ, সুর করেছেন জনপ্রিয় সুরকার পল্লব সান্যাল। অবশ্য মৃত্যু নিয়ে গানের বিষয়ে একটি স্ট্যাটাসে আসিফ আকবর তার ফেসবুক ফ্যান পেইজে অনুভূতি লিখেছেন। আসিফ লিখেছেন, মৃত্যু নিয়ে ভাবতে আমার ভালো লাগে, আরো ভালো লাগে মৃত্যুর আক্রমণ আক্রমণ খেলা। মৃত্যুর স্বাদ নেয়ার জন্যই পৃথিবীতে আসা। জাগতিক দায়িত্ব শেষে নিজের পাওনা বুঝে নেয়ার আগেই মৃত্যুর আক্রমণ চলে আসে। মানুষের চাওয়া পাওয়ার শেষ নেই, তাই অবধারিত মৃত্যু জেনেও আমাদের অতৃপ্ত আত্মা থেকে ‘ইশ’ শব্দটি উচ্চারিত হয়।
দর্শকপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী নিজেকে গলির গায়ক হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, দেশে নাম যশ খ্যাতি হয়েছে, মানুষ আমাকে ভালোবাসে, আবার কেউ ঘৃণাও করে। মৃত্যু নিয়ে আমার কোন ভয় নেই, তবে মৃত্যুর পরও বেঁচে থাকার একটা উপায় বের করলে মানুষের দোয়া পাওয়া যায়, মানুষের মনে বেঁচে থাকা যায় কিংবা কর্মগুলি বেঁচে থাকে। সহজ কথা একলা এসেছি, একলা যাবো। একলা কোনো দল হয় না, দলের সংজ্ঞার সাথে একলা শব্দটা যায় না। আসিফ আকবর এবং রাজিব আহমেদ এর প্রতি শুভকামনা রইলো।

One thought on “রাজিব আহমেদ এবং আসিফ আকবর এর মৃত্যুকাব্য…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: