‘করুণা নয় আমার গানের ন্যায্য অর্থ চাই’ – সুরস্রষ্টা আলম খান…

– আমাদের বাংলা সঙ্গীতকে প্রসার এবং শুদ্ধ ভাবে সারা বিশ্বভবে ছড়িয়ে দিতে যে ক’জন সঙ্গীত পরিচালক অবদান রেখেছেন শ্রদ্ধেয় আলম খান তাদের অন্যতম। ‘ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে’, ‘কি যাদু করিলা’, ‘তুমি আমার কতো চেনা’, ‘হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস’, ‘সবার জীবনে প্রেম আসে’, ‘সবাইতো ভালবাসা চায়’, ‘ওরে নীল দরিয়া’, ‘তুমি যেখানে আমি সেখানে’, ‘আমি একদিন তোমায় না দেখিলে’, ‘আমি রজনী গন্ধা ফুলের মতো’, সহ শত শত কালজয়ী বিখ্যাত গানের সুরস্রষ্টা সঙ্গীত পরিচালক আলম খান। হৃদয় উজাড় করিয়া তিনি জন্ম দিয়েছেন এমন মধুর গান। আজ তিনি পড়ে আছেন হাসপাতালের কক্ষে।

বরেণ্য সংগীত পরিচালক আলম খানের খুব দ্রুত অস্ত্রোপচার প্রয়োজন, জানিয়েছেন তাঁর চিকিৎসকেরা। নানা ধরনের জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি এখন শয্যাশায়ী। এই মুহূর্তে ওনার সুস্থতার জন্য অনেক অর্থের দরকার। কিন্তু তিনি কারও কাছে চাইতে পারবেন না। দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পীরা অনেকেই মঞ্চে আলম খানের তৈরি অনেক বিখ্যাত গান গেয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করছেন এবং মোবাইল কোম্পানি সহ বিভিন্ন রিয়ালিটি শো’তে ওনার গান ব্যবহার করা হচ্ছে সেই গানের আয়ের অংশীদার তো গীতিকার, সুরকারও। যেটা উনার ন্যায্য পাওনা, সেটা যদি গোপনে এসেও শিল্পী, প্রযোজকেরা (তাঁর গানসংশ্লিষ্ট) উনাকে দেন, তাহলে চিকিৎসায় কোন আর্থিক সংকট থাকবেনা।

গত ২০১০ সালে আলম খানের ফুসফুসে ক্যানসার ধরা পড়ে। দ্রুত তাঁকে নেওয়া হয় ব্যাংককে। সেখানে আলম খানের ফুসফুসের বাঁ দিকে অস্ত্রোপচার করা হয়। কিছুদিন ভালো থাকলেও তিনি আবার অসুস্থ হয়ে পড়েন। আলম খান অসুস্থতার কথা জানিয়ে সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন এবং নিজের গানের রয়্যালটি ও মেধাসত্ত্বর জন্য সবাইকে আহবান জানান।

আলম খান তার সঙ্গীত জীবনে অনেক সুরকার, গীতিকার, সঙ্গীতশিল্পী এবং মিউজিসিয়ানদের ক্যারিয়ার নিজ হাতে গড়ে দিয়েছেন আজ তার এ অসময়ে আমরা সবাইকে আলম খানের পাশে দাড়ানোর জন্য অনুরোধ করছি। আলম খানের মতো এমন একজন মানুষের হৃদয় যেন ব্যথিত না হয়।
অলংকরন – মাসরিফ হক…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: