নজরুল সাহিত্যে ঐশী প্রেম…

বাঙালি জাতির হাজার বছরের আধ্যাত্মিক ও অসাম্প্রদায়িক জীবন চেতনার মূর্ত প্রতীক হিসেবে অল্প ক’টি মুখশ্রী আমাদের চোখে ভেসে ওঠে মধ্যযুগে চন্ডীদাস। তারপর লালন। তারপর? অবশ্যই নজরুল এবং কেবল নজরুল। সাহিত্যের বিবিধ শাখায় সফল বিচরণ করলেও নজরুল সাহিত্যের যে দুটি দিক তাঁকে অনন্য মাত্রায় উন্নীত করে, তা হলো তাঁর কবিতা ও গানে আধ্যাত্মিক ব্যঞ্জনা সুফিবাদে যার মহত্তম বিকাশ সাধিত হয়েছে। সুফিতত্ত্বের মূল বাণী হচ্ছে আত্মপরিচয় জানার মধ্য দিয়ে নিজের কিছু সব সৃষ্টির কল্যাণে বিলিয়ে দিয়ে সৃষ্টিকর্তার চির অস্তিত্বশীল অস্তিত্বের সাথে নিজেকে ফানা বা বিলীন করে দেয়া, যেখানে আমিত্বের কোন অস্তিত্ব থাকে না, থাকে না বহুত্বের ধারণা, কিংবা খ-ড় উপস্থিতি। সব মিলে এক অখ-অস্তিত্ব। সকলেই সবকিছুই এক সৃষ্টিকর্তার পরিবারভুক্ত। সব ধর্মেই তাগিদ রয়েছে আত্মপরিচয় জানার। ইসলামে বলা হয়েছে- ‘মান আরাফা নাফসাহু, ফাকাদ
আরাফা রাব্বাহু’ (যে নিজের পরিচয় চিনেছে, সে তার সৃষ্টিকর্তাকে চিনেছে- আল হাদিস), বেদে বলা হয়েছে -‘আত্মানং বিদ্ধি (নিজেকে জানতে পারলে সব জানা যায়)।
মানুষকে শ্রেষ্ঠতম অবয়ব দিয়ে তৈরী করার পর বিবেক দিয়ে দেয়া হলো, ভালো মন্দ বোঝার শক্তি দেয়া হলো। তারপরও মানুষ অন্যের সম্পদ আত্মসাতের লোভে রাতের ঘুম হারাম করে, ওঠায় বসায় কারণে অকারণে মিথ্যার বেসাতি সাজায়। লোভ সম্বরণ করা সম্ভবপর হয় না, প্রতিবেশির ব্যবসায়িক সাফল্যের খবরে সে ঈর্ষার অনলে দগ্ধ হয়। আমাদের ভেতর এই বিবেকবর্জিত বোধ চালনা করছে কে? ভেতরে সক্রিয় চিরবিরোধী দুটি সত্তা। একটি কল্যাণের দিকে আহ্বান করছে, অন্যটি সর্বদা ধাবিত করে নিষিদ্ধ জগতের দিকে।
নিজের ভেতরে এই দ্বৈতসত্তার দ্বন্দ্বের কারণ ও প্রতিকার নিয়ে ভাবার আগে জানতে হবে আত্মপরিচয়। এক কথায়, নিজ আরশিতে নিজেকে দেখা। চর্মচক্ষু বন্ধ হলে হয় হৃদয় চক্ষুর উন্মোচন। নজরুল আত্মপরিচয় জানতে পেরেছিলেন। নিজেকে চেনতে পারার অপার আনন্দে উদ্বেলিত, উন্মাদ কবি উচ্চারণ করেছিলেন-
একি উন্মাদ! আমি উন্মাদ!
আমি সহসা আমারে চিনিয়া ফেলেছি
আমার খুলিয়া গিয়াছে সব বাঁধ।
– না, নজরুল সহসা নিজেকে চেনেননি। নীরব গোপন গহন প্রস্তুতি ছিল শৈশব থেকেই। পারিবারিক আবহের মধ্যেই ছিল ধর্মীয় মূল্যবোধের চর্চা। কাউকে কিছু না বলে হঠাৎ হঠাৎ কোন নাম না জানা সাধু সন্ন্যাসী ফকির দরবেশের সঙ্গে বেরিয়ে যেতেন বালক নজরুল। ফিরতেন বহু দিন পর। সেই সাধুসঙ্গ বৃথা যায়নি। লেটু দলে যে গান লিখেছেন, প্রতিপক্ষকে জর্জরিত করেছেন বাক্যবাণে, সেখানেও তার ঐশী প্রেমের বিচ্ছুরণ, দেহতাত্ত্বিক ভাবনার উদ্ভাসন:
নয়টা নালা আছে তাহার
ওযুর পানি সিয়াত যাহার
ফল পাবি নানা প্রকার
ফসল জন্মিবে তাহাতে।।
যদি ভাল হয় হে জমি
হজ্ব জাকাত লাগাও তুমি,
আরো সুখে থাকবে তুমি
কয় নজরুল ইসলামেতে।
আশেকের প্রেমের খনি পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে: প্রতিটি বস্তু আল্লাহর প্রশংসায় তসবীহ পাঠ করে। মহাকবি শেখসাদী বলেছেন: ‘গাছের একটি সবুজ পাতায় জ্ঞানীর চোখে হাজার রহস্যে ঘেরা।’ নজরুল অন্তর্দৃষ্টি দিয়ে অবলোকন করেছেন জগৎ সংসারের সব কিছু বিধাতার প্রিয় নামের জপে ব্যস্ত। গাছ পালা, নদী নালা, পশু পাখি সকলেই আল্লাহর মধুর নাম জপছে, সব কিছু তারই রূপে রূপময়:
ফুলে পুছিনু, ‘বল, বল ওরে ফুল!
কোথা পেলি এ সুরভি, রূপ এ অতুল?
‘যার রূপে উজালা দুনিয়া’, কহে গুল
‘দিল সেই মোরে এই রূপ এই খোশ্বু।’
আল্লাহু আল্লাহু ॥
ওরে রবি-শশী, ওরে গ্রহ-তারা
কোথা পেলি এ রওশন জ্যোতি ধারা?
কহে, আমরা তাহারই রূপের ইশারা
মুসা, বেহুঁশ হলো হেরি, যে খুব্রু
আল্লাহু আল্লাহু ॥

বঙ্গীয় মুসলমান সাহিত্য সমিতির রজত জয়ন্তী অনুষ্ঠানে সভাপতির ভাষনে কবি নজরুল বলেছিলেন:
“আপনাদের কাছে আজ অজানা নেই যে ঘরে বাইরে, সভায় বা সমাধির গোপন গুহায় কোথাও আমার পতিত্ব করার ইচ্ছা বা সাধ আমার নেই। যিনি সকল কর্মের, সকল ধর্মের, জাতির, দেশের, জগতের একমাত্র পরম স্বামী পতিত্ব বা নেতৃত্ব করার একমাত্র অধিকার তাঁর।…অসুন্দরের সাধনা আমার নয়, আল্লাহ আমার পরম সুন্দর। তিনি আমার কাছে নিত্য প্রিয়-ঘন সুন্দর, প্রেম-ঘন সুন্দর, রস-ঘন সুন্দর, আনন্দ-ঘন সুন্দর। আপনাদের আহবানে যখন কর্মজগতের ভিড়ে নেমে আসি, তখন আমার পরম সুন্দরের সান্নিধ্য থেকে বিরত হই, আমার অন্তরে বাহিরে দুলে উঠে অসীম রোদন। আমি তাঁর বিরহ এক মুহূর্তের জন্যও সইতে পারিনা। আমার সর্ব অস্তিত্ব জীবন-মরণ-কর্ম, অতীত-বর্তমান-ভবিষ্যৎ যে তারই নামে শপথ করে তাকে নিবেদন করেছি। আজ আমার বলতে দ্বিধা নেই, আমার ক্ষমা-সুন্দর প্রিয়তম আমার আমিত্বকে গ্রহণ করেছেন।”
মানব প্রেম থেকে ঐশী প্রেমে উত্তরণের মাঝখানে অনেক চড়াই উৎরাই, দহন-সহন থাকে। আমরা জানি, একের পর এক হৃদয়ঘটিত সম্পর্কে জড়িয়েছেন কবি, কোনটাই টেকেনি। প্রমিলাকে বিয়ে সংসারে স্থিত হলেও কবির বৈরাগী মন কিন্তু তখনও অস্থির। বার বার তাঁর মনে হয়েছে: …..’আরও বেশি ভালো কেহ বাসিছে গোপনে।’ কে সে? কবি কি পরমের ডাক শুনতে পেয়েছিলেন মনের গহনে যে ডাকে মনোমোহন গেয়েছিলেন ‘মন মাঝে যেন কার ডাক শোনা যায়’? সেই মায়াময় ডাকেই ভরা পূর্ণিমায় রাজপুত্র সিদ্ধার্থ হলেন গৃহত্যাগী? চৈতন্যদেব ছেঁড়ে গেলেন বিষ্ণুপ্রিয়ার বাহুডোর? রঙ্গরসে মত্ত হাসন রাজা হলেন বাউলা?
লায়লীকে ভালোবেসে কায়েস হলো মজনু (পাগল)। জীবনের শেষপ্রান্তে দেখা হলো দুই অতৃপ্ত হিয়ার। “মজনু যখন নজ্দ্ এর নির্জন বনভূমিতে মৃত্যুর প্রহর গুণিতেছিলেন, লায়লী খবর পাইয়া পাগলিনীর ন্যায় তথায় ছুটিয়া গিয়া ব্যাকুল কণ্ঠে বলিলেন ‘প্রাণের কয়েস, চাহিয়া দেখ আমি আসিয়াছি। মজনুর ঘোলাটে চোখ লাইলীর বেদনাক্লিষ্ট মুখের উপর স্থির হইল। অস্ফুট স্বরে বলিলেন, তুমি কে? লায়লী শরাহত পাখির ন্যায় আর্তনাদ করিয়া উঠিয়া বলিলেন, চিনিতে পারিতেছ না কয়েস, আমি যে তোমার প্রাণের লায়লী। মজনু বিষ্ফারিত লোচনে তাকাইয়া বলিলেন,তুমি লায়লী? না না তুমি লায়লী নও, তিনি তো বৃক্ষের ঐ পত্ররাজি, ঐ গিরিশিখর, ঐ মেঘপুঞ্জে চপল পদে ঘুরিয়া বেড়াইতেছেন আর আমার দিকে আড়নয়নে তাকাইয়া তাকাইয়া হাসিতেছেন।’ (আবু মোহাম্মদ জাফরুল হক, জীবনের অন্য রূপ)। দেহ থেকে দেহাতীত ভালোবাসায় উত্তরণের সেই অব্যক্ত অনুভূতির কথাই লিখেছেন নজরুল তাঁর গানে।
লায়লী! লায়লী! ভাঙিয়ো না ধ্যান মজনুঁর এ মিনতি
লায়লী কোথায় আমি শুধু দেখি লা এলা’র জ্যোতি।
পাথর খুঁজিয়া ফিরিয়াছি প্রিয়া প্রেম-দরিয়ার কূলে,
খোদার প্রেমের পরশ-মানিক পেলাম কখন ভুলে।

মজনুঁরে ও যে লায়লী ভোলায় সে যে কত সুন্দর
বুঝিবে লায়লী যদি তুমি তারে নেহার এক নজর
সাধ মিটিবে না হেথা ভালোবেসে
চল চল প্রিয়া লা এলা’র দেশে
নিত্য মিলনে ভুলিব আমরা এই বিরহের ক্ষতি ॥

প্রথাসিদ্ধ ধর্মকর্মে নজরুল হয়তো নিষ্ঠাবান ছিলেন না। তাই বলে এ সম্পর্কে তার কোন তাচ্ছিল্যও ছিল না, বরং আক্ষেপ ছিল নিজের গাফিলতির জন্য যার পরিচয় রয়ে গেছে তাঁর বহু কবিতায়, বিশেষত গানে –
হে নামাজী! আমার ঘরে নামাজ পড় আজ
দিলাম তোমার চরণ-তলে হৃদয় জায়নামাজ ॥
আমি গুনাহ্গার বে-খবর
নামাজ পড়ার নাই অবসর
তব, চরণ-ছোঁওয়ার এই পাপীরে কর সর্ফরাজ ॥

অন্য এক গানে বলেছেন:
ঘুমাইয়া কাজা করেছি ফজর
তখনো জাগিনি যখন জোহর
হেলা ও খেলায় কেটেছে আসর
মাগরিবের আজ শুনি আজান
জমাত-সামিল হও রে এশাতে
এখনো জমাতে আছে স্থান ॥
আত্মবিস্মৃত মুসলিম জাতিকে (এবং সাথে সাথে নিজেকেও) কবি বলছেন: ফজর-জোহর-আসর-মাগরিব; সব গেছে হেলায় ফেলায়। এশার নামাযও শুরু হয়ে গেছে। দৌড়াও, শেষ কাতারে এখনও দাঁড়াবার স্থানটুকু অবশিষ্ট আছে, শামিল হও!
জীবনের সব কিছু কবি সৃষ্টিকর্তার ওপরই ছেড়ে দিয়েছেন। এমন দিনও গেছে বাজার খরচের টাকাও তার হাতে ছিল না, ঘরে অসুস্থ স্ত্রী; ঔষধ কিনবেন কী করে? কবি ভেঙ্গে পড়েননি। দয়াময়ের প্রতি ছিল না তার কোন অভিযোগ। তিনি দয়াময়ের দেয়া ‘কণ্টক মুকুট শোভা’ সানন্দে গ্রহণ করলেন। নিজেকে প্রবোধ দিয়েছেন এই বলে,
আহার দিবেন তিনি ও মন জীব দিয়েছেন যিনি
তোরে সৃষ্টি করে তোর কাছে যে আছেন তিনি ঋণী।

অসহায় দাসত্ব নয়; সর্বপ্লাবি প্রেমের অঞ্জলি নিয়ে মাশুকের দরজার টোকা দিতে হয়। অনিবার্য গঞ্জনা মেনে নিয়েই নামতে হয় অভিসারের পথে। মাশুক খোলা চুল পছন্দ করে, নাকি বেণী? চোখে কাজল দেব, কি দেব না, তা আগে থেকেই জানা প্রয়োজন। মাটির মানুষের সাথে তার সম্পর্ক কী? অযুত কোটি ফেরেস্তার স্তব-স্তুতিতে তার মন ভরলো না? প্রেমের সম্বন্ধ পাতাতে হলো মাটির মানুষের সাথেই? সৃষ্টির কাছে তার প্রত্যাশা মূলত কী? জানতে হবে।
এসব প্রশ্নের উত্তর জানাতে গিয়ে তৈরি হয়েছে নানা পথ, নানা মত। যুগে যুগে সৃষ্টিকর্তাকে নিয়ে মানবমনে চলে আসছে নানা জল্পনা কল্পনা, গবেষণা। কেউ আকারের মধ্যে নিরাকারকে ধরতে চেয়েছেন, কেউ সাকারের মধ্যে নিরাকারকে পেতে চেয়েছেন। কিন্তু আধ্যাত্মিক সাধকেরা নিজের মধ্যে সৃষ্টিকর্তাকে খুঁজে পান। তারা কাগজের কোরানের চেয়ে দিলকোরানকে প্রাধান্য দেন। মানবদেহকেই মনে করেন আল্লাহর আবাসস্থল। সারা বিশ্বভ্রহ্মা-রে কোথাও সৃষ্টিকর্তা স্থিত হতে পারেন না, শুধু মানব হৃদয়েই তার সংকুলান। তিনি পরম সৌন্দর্যময়, প্রেমময়। তিনি সপ্ত আকাশ পৃথিবীর আলো (আল্লাহু নূরউস সামাওয়াতে ওয়াল র্আদ)।
নজরুল সাধক এবং প্রেমিক। কবির অন্বেষণ পরমাত্মার অন্বেষণ। যুগে যুগে যে অন্বেষণ অগনিত পয়গম্বর, সুফি দরবেশ, মরমী সাধকের নজরুল সেই পথেরই মুসাফির। সূরা ‘হাদীদ’-এর ৪ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে ‘ওয়া হুয়া মাকুম, আইনামা কুনতুম।’ অর্থাৎ, ‘তোমরা যেখানে, তিনিও সেখানে।’ এত কাছে যার বসবাস, বাড়ির কাছে থাকে যে পড়শী, তাকে কেন খুঁজতে হবে দেবতা ঠাকুর মৃত পুঁথিকঙ্কালে?
মসজিদ এই, মন্দির এই, গীর্জা এ হৃদয়
এখানে এসে ঈসা, মুসা পেল সত্যের পরিচয়।
…..এই কন্দরে আরব দুলাল শুনিতেন আহ্বান
এইখানে বসে গাহিলেন তিনি কোরানের সাম্যগান।
মিথ্যা শুনিনি ভাই
এ হৃদয়ের চেয়ে বড় কোন কাবা মন্দির নাই।
মানুষের গড়া মসজিদ মন্দির, আর স্রষ্টার নিজ হাতে গড়া হৃদয়কাবা। কোনখানে তাঁর বাস? সুফি সাধনায় ভক্ত ও স্রষ্টা পরস্পরের সামনে দাঁড়িয়ে যান প্রেমিক-প্রেমিকার ভূমিকায়। সুরা-সাকি-পেয়ালা সব সেখানে একাকার।
দৃশ্য-দৃষ্টা-দৃশ্যপট… আলাদা করে সাধ্য কার! সাধারণ ধার্মিকের ঈশ্বর থাকেন সাত আকাশের দূরত্বে, ভক্তের ঈশ্বর তাঁর বাহু বন্ধনে আবদ্ধ। শিল্পী তার শিল্পকর্ম সম্পন্ন করে যেভাবে তার দিকে অপলক চেয়ে থাকে, তেমনি নিজের সর্বোত্তম অবয়ব মানুষের মধ্যে রূপায়িত করে স্রষ্টা ও অপলক তাকিয়ে থাকেন তার প্রিয় সৃষ্টির দিকে। নজরুল বলেন:
আমার আপনার চেয়ে আপন যেজন
তারে খুঁজি আমি আপনায়।
আমি শুনি যেন তাঁর চরণের ধ্বনি
আমারই তিয়াসী বাসনায় ॥

আমারই রচিত কাননে বসিয়া
পরানু পিয়ারে মালিকা রচিয়া
সে মালা সহসা দেখিনু জাগিয়া
আপনারই গলে দোলে হায় ॥

স্বপ্ন রাজ্যে যে মালা আমি পরালাম প্রিয়তমের গলায়, জেগে দেখি সে মালা আমার গলাতেই শোভা পাচ্ছে! তাহলে আমি কে, তুমি কে? ক্ষুব্ধ মুগ্ধ প্রেমিক সাধক মনোমোহন দত্ত তাই গেয়ে ওঠেন :
আমি-তুমি মাঝে
তফাত কিবা আছে
রফা করে দাও একেবারে ॥
কীভাবে হবে এ রফা? কীভাবে হবে আত্মদর্শন? তিনি বিশ্বব্যাপী বিরাজিত। এই বিশ্বাসে মন তো ভরে না। চোখের তৃষ্ণা যে বাড়তেই থাকে। ব্যাকুল কবি আকুল কণ্ঠে তাই জানতে চান:
আমার মাঝারে তুমি যদি রহো
তবে কেন এই অসীম বিরহ
বুকে কেন বাজে নিবিড় বেদনা
মনে হয় তুমি নাই ॥
এ বড় কঠিন অভিমান ‘মনে হয় তুমি নাই!’ তুমি যদি থেকেই থাকো, তাহলে তোমায় দেখতে পাই না কেন? সব কিছু দেখার জন্য চোখ দিয়েছো আমাকে, সেই চোখ কেন তোমাকে দেখার সুখ থেকে বিরত –
ওগো সুন্দর, যদি নাহি দেবে ধরা
কেন প্রেম দিলে বেদনায় ভরা
রূপের লাগিয়া কেন কাঁদে প্রাণ
রূপ যদি তব নাই ॥
মুসা (আঃ) প্রত্যক্ষ করতে চেয়েছিলেন অরূপের সেই রূপ। উত্তর এসেছিল: ‘লান তারানি!’ তুমি আমাকে দেখতে পারবে না! তারপর তো সেই রূপের এক ঝলকে ঝলসে গেল তুর পাহাড়। বাহ্যজ্ঞান হারালেন পয়গাম্বর। নজরুলও কি দেখতে পেয়েছিলেন সেই রূপের ছটা? হয়তো বা। ‘দেখিয়া তার রূপের চটক হাসন হইল আউলা।’ হাসন হলেন ‘আউলা’। নজরুল হয়ে গেলেন নির্বাক, চিরতরে। বোবা কি তার স্বপ্নে দেখা আনন্দ-অনুভূতির কথা ব্যক্ত করতে পারে? বড় কষ্টের সেই অপরাগতা। সেই বোবাযন্ত্রণার কথা কবি লিখে গেলেন নির্বাক হবার আগেই:
এ কোন মায়ায় ফেলিলে আমায় চিরজনমের স্বামী
তোমার কারণে এ তিন ভুবনে শান্তি না পাই আমি ॥

মুখ থাকিতেও বলিতে পারে না বোবা স্বপনের কথা;
বলিতেও নারি লুকাতেও নারি; তেমনি আমার ব্যথা।
যে দেখেছে প্রিয় বারেক তোমায়
বর্ণিতে রূপ ভাষা নাহি পায়
পাগলিনী-প্রায় কাঁদিয়া বেড়ায় অসহায়, দিবাযামী ॥

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে এক ভাষনে নজরুল বলে উঠেনঃ
“আমি আল্লাহকে দেখেছি, কিন্তু সে সব কথা বলার সময় এখনো আসে নাই। সে সব কথা বলার অনুমতি যেদিন পাব সেদিন আবার আপনাদের সামনে আসব।”
হৃদয়ের আরশীতে দেখা অরূপ-রতনের স্বরূপ বর্ণনা কবি করে যেতে পারেননি। ‘ভালোবাসা যেখানে গভীর, থাকে না কথার ঢেউ সেখানে।’ চির আরাধ্যকে কাছে পাবার আনন্দে কবি মুখের ভাষা হারালেন, ভাষার আর তখন প্রয়োজনই বা কী? তখন শুধু ‘হৃদয় দিয়ে হৃদি অনুভব।’ রাতজাগা ক্লান্ত পরিশ্রান্ত কবি পরম শান্তিতে ঘুমিয়ে পড়লেন। সমাধিস্থ হলেন মসজিদেরই পাশে, কেন? ‘যেন গোরে থেকেও মুয়াজ্জিনের আযান শুনতে পাই।’ নির্বাক হয়ে যাবার কিছুদিন আগে এক অভিভাষণে নজরুল একদিন বলেন: যেদিন আল্লাহ তাঁর এই বান্দার অন্তর বাহিরের সর্বসত্তাকে তাঁর বলে গ্রহণ করবেন, আমার বলে কিছুই থাকবে না, যেদিন আমার পরম স্বামী পরম প্রভুর দরবার থেকে পাব ফরমান, সেই দিন আমি তাঁরই ঈঙ্গিতে কর্মে নামব, তার আগে নয়। আল্লাহ আমায় সকল প্রলোভন থেকে রক্ষা করুন। ….আজ আমার বলতে দ্বিধা নেই-আল্লাহর রহমত আমি পেয়েছি, আমার
পরমপ্রিয় আল গফুরুল ওদুদ (পরম ক্ষমাসুন্দর প্রেমময়) আমায় নাজাত দিয়েছেন।’
পরমারাত্মার সান্নিধ্য লাভের অনুভূতি প্রসঙ্গে তিনি বলেন: ‘….আজ আমার সকল সাধনা, তপস্যা, কামনা, বাসনা, চাওয়া, পাওয়া, জীবন, মরণ তাঁর পায়ে অঞ্জলি দিয়ে আমি আমিত্বের বোঝা বওয়ার দুঃখ থেকে মুক্তি পেয়েছি’। ধর্মের বাইরের আবরণ যাদের চোখ অন্ধ করে রেখেছে, তারা বিধাতা ও মানুষের মধ্যে প্রভু গোলামের সম্পর্কে বিশ্বাসী। সুফিরা এ ভাবনা থেকে মুক্ত। তারা প্রেমিক। ভক্তিই তাদের বল, নামই সম্বল। একজন সুফি প্রিয়তম আল্লাহর সামনে সরাসরি হাজির হতে উন্মুখ। মাঝখানে কারো দালালী মানতে তিনি নারাজ। পরম সত্তায় তিনি সদা নিবেদিত, ঝড়ের রাতে কুড়িয়ে পাওয়া বকুল ফুল দিয়ে গাঁথা মালা প্রিয়তমের গলায় পরিয়ে দেয়ার আনন্দে ব্যাকুল। এর বাইরে সুফির কোন বাসনা নেই, প্রতিদানের আশা নেই। সৃষ্টিকর্তা তাকে জান্নাতে পাঠাবেন, নাকি জাহান্নামে; এ নিয়ে তার কোন মাথা ব্যথা নেই। শুধু এক নজর চোখের দেখায় হাজার রাত বিনিদ্র থাকাতেই সুফির বিমল আনন্দ। সোজা রাস্তা থাকতে আঁকাবাঁকা সরু পথে যাওয়া কেন? নজরুলের ভাষায় –
বন্ধু কেন এ প-শ্রম মগজে হানিছ শুল
দোকানে কেন এ দর কষাকষি পথে ফোটে তাজা ফুল?
দোকানে দর কষাকষি না করে পথে ফোটা তাজা ফুল দিয়েই কবি তাঁর প্রেমাঞ্জলি সাজিয়েছিলেন। মোল্লা-পুরোহিতের মধ্যস্থতায় তাঁর আস্থা ছিল না। তাই পথে নেমেছিলেন নিজের দেহকে ‘দেউল’ জেনে –
আমি ভাই ক্ষ্যাপা বাউল, আমার দেউল
আমারই এ আপন দেহ
আমার এ প্রাণের ঠাকুর নহে সুদূর
অন্তরে মন্দির-গেহ।
একই সাথে রাসূল (সঃ)-এর প্রশস্তি, আবার শ্যামার স্তুতি। হামদ-নাত আর কীর্তন-ভজনের এমন সহাবস্থান বাংলার সংগীতের ইতিহাসে আছে বলে মনে হয় না। তাঁর শ্যামা সঙ্গীত আর ইসলামী গানের আবেদন সর্বাংশে এক ও অভিন্ন। সব ধর্মের প্রেরিত পুরুষদের সমানভাবে শ্রদ্ধাঞ্জলি দিয়েছেন তিনি। তাঁর সাহিত্যজীবন কিংবা জীবনসাহিত্য যা-ই বলি; এর উদ্দেশ্য ছিল হিন্দু মুসলমানের গালাগালিকে গলাগলিতে রূপান্তর করা, একই সাথে ইসলামের সর্বজনীন শাশ্বত রূপ বিশ্বময় ছড়িয়ে দেয়া।
সৃষ্টিকর্তার সাথে মিলনের সর্বশেষ ধাপটি হল নিজেকে সম্পূর্ণরূপে তাঁর কাছে সমর্পণ করা। পারস্যের কবি হাফিজ বলেন: ‘যেদিন আমি নশ্বর পৃথিবী ছেড়ে চলে যাবো সেদিন আমার পরম আনন্দ। কেননা আমি আমার প্রিয়ার কাছে চলে যাবো।’ সাধক কবি আমির খসরু বলছেন: ‘দুনিয়া ছেড়ে চলে যাচ্ছি, আজকে আমার আনন্দের দিন। এখানে আমার ভালো লাগে না। আমার আসল বাসভূমিতে আমি ফিরে যাচ্ছি।’ মাওলানা রুমি বাঁশির সুরে শুনতে পেয়েছেন মূল থেকে বিচ্ছিন্ন হবার বিরহ যন্ত্রণা, কবে আবার মূলের সাথে তার মিলন হবে। মুয়াজ্জিনের আযানে নজরুল শুনেছেন প্রিয়াহারা কারো কান্নার সুর, বিরহী পাপিয়ার গান।
আমাদের ভালোবাসা প্রায়শই উদ্দেশ্যমূলক। আবু মোহাম্মদ জাফরুল হক তাঁর ‘জীবনের অন্যরূপ’ বইয়ে যথার্থই বলেছেন, ‘আপনার মধ্যে সেই নিঃস্বার্থ ভালবাসা কোথায়? আপনি বিড়ালকে ভালবাসেন ইদুরের উপদ্রব নিবারণের জন্য, কুকুর ভালবাসেন বাড়ী পাহারা দেবার জন্য, জমিজমা ভালবাসেন উদরপূর্তি করে ভোজনের জন্য, ব্যবসা বাণিজ্য ভালবাসেন ধনবানদের তালিকায় নাম উঠানোর জন্য, লেখাপড়া ভালবাসেন নিরক্ষরকে অবজ্ঞার চোখে দেখার জন্য, সৎকাজ ভালবাসেন সুনাম অর্জনের জন্য, মোসাহেবি ভালবাসেন বকা- প্রত্যাশা পূরণের জন্য, প্রতিবেশীকে ভালবাসেন দলভারী করে স্বার্থ উদ্ধারের জন্য।’
নামাজ রোজার বদলাতে আবেদ চায় জান্নাত। নজরুল কী চেয়েছেন স্রষ্টার কাছে? নিছক করুণার দাবীদার নন কবি; তার একমাত্র চাওয়া প্রেম। প্রেমের শরাবে আকণ্ঠ নিমজ্জিত হতে চান কবি:
দুনিয়াদারীর শেষে আমার নামাজ রোজার বদলাতে
চাইনে বেহেশ্ত খোদার কাছে নিত্য মোনাজাত করে ॥
কী চান প্রিয় ‘হযরত’-এর কাছে? শাফায়াৎ, যা সবার কাম্য?
তুমি জানো হে মোর স্বামী
শাফায়াৎ চাহি না আমি
আমি শুধু তোমায় চাহি তোমার মুহব্বত
হযরত তোমার মুহব্বত ॥
নজরুল যখন শ্যামা সংগীত লিখেছেন, সেখানে উপমা অলংকার শব্দচয়ন বদলেছে, যেটা বদলায়নি সেটা হলো পরম সত্তার কাছে তার নিঃশর্ত আত্মনিবেদন। কোন রকম লোভে, কোন ভিতিতে নয়; নিছক ভালোবাসার প্রেরণায় ভালোবাসা। স্বর্গে গেলে যদি তাঁকে ডাকার প্রয়োজন ফুরিয়ে যায়, তাহলে কী দরকার সেই স্বর্গে যাওয়ার, কেন তাঁকে ডাকার আনন্দ থেকে বিরত হবো:
…………..
যেথায় গেলে তোমায় ডাকার প্রয়োজন আর নাই ॥
শরীয়ত বলে, শেষ বিচারের দিন আল্লাহ কাহ্হার (কঠোর) রূপ ধারণ করবেন। সে দিনের কথা ভেবে ভয়ে সবাই যখন অস্থির, ভক্ত নজরুলের মনে তখন আনন্দের বন্যা
যে দিন রোজ হাশরে করতে বিচার আল্লা হবেন কাজী
সেদিন তোমার দিদার আমি পাব কি আল্লাজী ॥

আমি তোমায় দেখে হাজারো বার দোজখ যেতে রাজি ॥

নজরুলকে চিনতে হলে, তাঁর ঐশী প্রেমের স্বরূপ বুঝতে হলে প্রেমিক হতে হবে। নিরস ধর্মাচারে যারা অভ্যস্ত, কিংবা নিছক তত্ত্বকথায় যারা তুষ্ট, তারা নজরুলকে, নজরুলের ঐশী প্রেমের স্বরূপ উদ্ঘাটন করতে ব্যর্থ হবেন।
কবি নিজেই বলেছেন: ‘প্রেমিক দরবেশ আমায় চিনে, অরসিকে কয় বাতুল’। – লেখক ও সাংবাদিক – হাবিব মোস্তফা…
অলংকরন – মাসরিফ হক…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: