মায়াবী রবীন্দ্র সন্ধ্যা…

গত ৫ নভেম্বর, সন্ধ্যা ৬টায় ইন্দিরা গান্ধী কালচারার সেন্টারের আয়োজনে জাতীয় জাদুঘরের সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল মায়াবী একটি রবীন্দ্র সন্ধ্যা। রবীন্দ্রনাথকে যারা মনে প্রাণে লালন করে এবং রবীন্দ্র সংগীত প্রেমীরা ভিড় জমিয়েছিল এই আয়োজনে। আর ভিড় জমানো রবীন্দ্র সংগীতের ভক্তদের গান শুনিয়ে তৃপ্ত করেছেন শিল্পী সাজেদ আকবর ও শিল্পী সালমা আকবর । এই দুই শিল্পীর পরিবেশনায় আর সুরের মূর্ছনায় জমে ওঠে সন্ধ্যার পরিবেশ । এছাড়াও বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্রে ছিলেন সুবীর ঘোষ, মোনোয়ার হোসেইন টুটুল, আসিফ বিশ্বাস, সাদাত হোসেইন রণি ও সুনীল সরকারের মত গুনী যন্ত্রশিল্পীরা ।

শিল্পী সালমা আকবরের সংগীতের শিক্ষালাভ ছায়ানট থেকে শুরু হলেও পরবর্তীতে তিনি ওস্তাদ নারায়ন চন্দ্র বাসক, ওস্তাদ আজাদ রহমানের মত গুণী ওস্তাদের কাছ থেকে তালিম নেন ক্ল্যাসিক্যাল মিউজিকের । এরপর রবীন্দ্র সংগীতের তালিম নেন লতা করিম সারাফি, সানজিদা খাতুন, সাদিয়া মোহম্মদ ও রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার মত বড় মাপের শিল্পীদের কাছ থেকে। শিল্পী সালমা আকবর দেশ ও দেশের বাইরে রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশন করে দেশের সংস্কৃতিকে তুলে ধরেছেন । এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ বেতার, বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে নিয়মিত সংগীত পরিবেশনা করে থাকেন।

সাজেদ আকবর ওপার বাংলা সহ যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়ার মত দেশে রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশন করেছেন । তিনি নিজেও বাংলাদেশ বেতার ও বাংলাদেশ টেলিভিশনের নিয়মিত শিল্পী। তিনি বাংলাদেশ রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী সংস্থার যৌথ সম্পাদক। আকবর দম্পতির দ্বৈত সঙ্গীতানুষ্ঠান এপার বাংলা-ওপার বাংলার রবীন্দ্র প্রেমীদের কাছে সমান জনপ্রিয়। এই দম্পতির কন্ঠে সুর হয়ে পরিবেশিত হয়েছিল “কার মিলন চাও বিরোহী”, “পথের শেষ কোথায়”, “মন্দিরে মম কে”, “আমার সকল রসের ধারা”, “তোমার গোপন কথাটি”, “ঐ জানালার কাছে বসে আছি, “এরকম আরও কিছু জনপ্রিয় রবীন্দ্র সংগীত। সুরের খেলায় মগ্ন হয়ে গিয়েছিলেন শ্রোতারা। – তাসনিয়া লস্কর…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: