আজীবন সম্মাননা পাচ্ছেন শেখ সাদী খান…

অসংখ্য গানের স্রষ্ঠা ও সঙ্গীতের জাদুকর বলে যাকে আখ্যা দেয়া হয়েছে। সারাটি জীবন সুর ও সঙ্গীতের শিকলে আবদ্ধ ছিল যে মানুষটি। যাকে আগে ও দুইবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার এবং দেশের বাইরে থেকে অসংখ্য সম্মাননা দিয়েছেন। যার জীবনের ৫৭টি বছর কাটিয়ে দিয়েছেন সুর ও সঙ্গীতের সাগরে, তিনি হলেন বাংলার প্রতিটি হৃদয়ের মধ্যে মণি। তিনি সবার প্রিয় শেখ সাদী খান।

সঙ্গীত জগতের গুনী মানুষটিকে গুনের কদর দিতে বাংলাদেশ পরিবেশ ও মানবাধিকার বাস্তবায়ন সোসাইটি ‘হিউম্যান রাইটস অ্যাওয়ার্ড’ আজীবন সম্মাননা প্রদান করছেন। এই উপলক্ষ্যে আজ ২৩মে মঙ্গলবার বিকেল ৫টার রাজধানীর শাহবাগে কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরীর শওকত ওসমান মিলনায়তনে তাকে এই সম্মাননা দেওয়া হয়।

সম্মাননা প্রদান করবেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙা এমপি। এসময় আরো উপস্থিত থাকবেনন সংসদ সদস্য হাবীবুর রহমান মোল্লা এমপি, অ্যাডভোকেট সানজিদা খানম এমপি, হাজী রহিমুল্লাহ এমপি,বিচারপতি সিকদার মকবুল হক, ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদ্রেষ্ঠা অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন প্রমুখ।

বাংলাদেশ পরিবেশ ও মানবাধিকার বাস্তবায়ন সোসাইটির কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান এম ইব্রাহিম পাটোয়ারী বলেন, এই সোসাইটির বর্ষপূর্তী উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি নিজ নিজ ক্ষেত্রে অবদান রাখার জন্য গুনীদের ‘হিউম্যান রাইটস অ্যাওয়ার্ড’ দেওয়া হবে। এবছর সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক শেখ সাদী খানকে এই পুরুষ্কার দেওয়া হবে। তার মত এমন গুনি মানুষকে এই সম্মাননা দিতে পেরে আমরা গর্বিত।

এদিকে সঙ্গীতাঙ্গনকে শেখ সাদী খান তার এই পুরস্কার পাওয়ার অনুভুতি জানাতে গিয়ে বলেন যে, পৃথিবীর সকল মানুষ তার নিজ নিজ ভালো কাজের জন্য স্বিকৃতি পাওয়ার আশা করে। আমিও করি সবাই করে। আমার খুব খুবই আনন্দ লাগছে এবং যারা এই সম্মাননার আয়োজন করেছে সবাইকে আমার আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করি। তিনি আরো জানান যে যারা পৃথিবী থেকে চিরবিদাই হয়ে গেছে। তারা এই সম্মাননা পায়নি, এটা জাতি হিসেবে আমাদের জন্য লজ্জাকর। আমরা তাদের গুনের দাম দিতে পারিনি।

শ্রদ্ধেয় শেখ সাদী খানকে নতুন যারা কাজ করছে সঙ্গীত জগতে তাদের সম্পর্কে জানতে চাইলে বলেন যে আগামী প্রজন্মে যারা কাজ করবে তাদের জন্য আমার একটাই কথা আর সেটা হল, সবাইকে ভালো কাজ করার মাধ্যেমে জাতির কাছে গ্রহনীয় হতে হবে। একটা কথা সব সময় মাথায় রাখতে হবে, ভালো কাজের দ্বারা ভালো মানুষ হওয়া যায়। এ দেশটা সবার তাই এদেশ গড়ার কাজ সবাইকে নিজের দায়িত্বে করা উচিৎ। সঙ্গীতের উজ্জল নক্ষত্র তার জীবনের সব সময়টা সঙ্গীতের জন্য ব্যয় করছেন এবং এখনো সঙ্গীতেই ডুবে আছেন। এই গুনী মানুষটি আমাদের মাঝে বেচে থাকুক আজীবন। সঙ্গীতাঙ্গনের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিন্দন আজীবন সম্মাননার মধ্যে দিয়ে বেচে থাকুক তার গুনের প্রতিভা। – মোঃ মোশারফ হোসেন (মুন্না)…
অলংকরন – গোলাম সাকলাইন…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: