আজ শ্রোতাপ্রিয় শিল্পী পড়শী-র জন্মদিন…

আজ জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী সাবরিনা এহসান পড়শী’র শুভ জন্মদিন।
১৯৯৬ সালের ৩০ শে জুলাই সবার মুখে হাসির জোঁয়ার বয়ে পৃথিবীতে আগমন করেন। তাঁর বাবা প্রকৌশলী এহসান-উর-রশিদ এবং মা জুলিয়া হাসান গৃহিনী। তার একমাত্র ভাইয়ের নাম এহসান স্বাক্ষর। পড়শী অক্সফোর্ড ফাউন্ডেশন স্কুল, ভিকারুননিসা নূন স্কুল এবং ক্যাম্ব্রিয়ান স্কুল এন্ড কলেজ থেকে মাধ্যমিক পড়াশোনা করেন।

নাচ প্রিয় পড়শী নাচের প্রতি আগ্রহী হয়ে নাচ শিখেন এবং পরবর্তীতে ক্লাসিক্যাল সঙ্গীত শেখা শুরু করেন। ‘কমল কুঁড়ি’ নামের একটি গানের প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহন করে সরকারিভাবে ২০০৭ সালে ‘দেশের গানে’ ক্যাটাগরিতে বিজয়ী হন। ২০০৮ সালে চ্যানেল আইয়ের ‘ক্ষুদে গানরাজ’-এ দ্বিতীয় রানার আপ হন সাবরিনা এহসান পড়শী। তিনি পপ ও আধুনিক ধারার গান করেন।
তাঁর সঙ্গীত কর্মজীবন মূলত শুরু হয় ২০০৮ সালের চ্যানেল আইয়ের ক্ষুদে গানরাজ-এ দ্বিতীয় রানার আপ হওয়ার থেকে। ২০০৯ সালে তাঁর প্রথম রেকডিং ছিলো একটি সিনেমার জন্য এবং তাঁর প্রথম একক এ্যালবাম ‘পড়শী’ এর কাজ শুরু করেন। তিনি পাঁচ জন সঙ্গীত পরিচালকের সাথে এ্যালবাম তৈরীর কাজ করেন। এ্যালবামটি ২০১০ সালে ঈদে রিলিজ পায়। প্রথম এ্যালবামের পর তিনি ২০১১ সালে থেকে প্লেব্যাক গায়িকা হিসেবে কাজ শুরু করেন। ২০১২ সালর ১৪ই ফেব্রুয়ারী তাঁর দ্বিতীয় একক এ্যালবাম ‘পড়শী-২’ মুক্তি পায়। তারপর ২০১২ সালে বর্ণমালা নামে একটি ব্যান্ডদল গঠন করেন পড়শী। ২০১৩ সালে মুক্তি পায় তাঁর তৃতীয় একক এ্যালবাম ‘পড়শী-৩’। তারপর তাঁর সঙ্গীত জীবনের জনপ্রিয়তার কাহিনী সবারই জানা। আজ ৩০শে জুলাই তাঁর জন্মদিন নিয়ে সঙ্গীতাঙ্গনের প্রতিবেদকের সাথে কথোপকথন-

সঙ্গীতাঙ্গনঃ সঙ্গীতাঙ্গান পরিবারের পক্ষ থেকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা।
পড়শীঃ ধন্যবাদ।
সঙ্গীতাঙ্গনঃ কেমন আছেন?
পড়শীঃ ভালো।
সঙ্গীতাঙ্গনঃ আজ আপনার জন্মদিন আপনার অনুভূতি সম্পর্কে জানতে চাই।
পড়শীঃ আসলে আলাদা তেমন কিছু নয়। তবে ভালো লাগে। আজকের এই দিনে আমি পৃথিবীর মুখ দেখেছি। আল্লাহর অশেষ রহমত ও কৃপা এবং আমার বাবা মা’র কাছে চির ঋণী।

সঙ্গীতাঙ্গনঃ জন্মদিন উপলক্ষ্যে কোন পরিকল্পনা বা অনুষ্ঠানে আয়োজন আছে কি?
পড়শীঃ না তেমন কোন পরিকল্পনা নাই। আসলে এই দিনকে কেন্দ্র করে কখনো ঘটা করে তেমন কিছু আমার করা হয় না। তবে বাবা- মা, ভাইয়া সবার সাথে থাকা ও সময় কাটানো, এই আর কি।

সঙ্গীতাঙ্গনঃ শৈশবে পড়শীর জন্মদিন ও আজকের তারকা খ্যাত পড়শীর জন্মদিনের মধ্যে কোন পার্থক্য খুঁজে পান?
পড়শীঃ পার্থক্য বলতে, শৈশবে আমার বাবা-মা আর ভাইয়া উইস করতো, এখন আমার গানপ্রিয় শ্রোতাসহ ফ্যানরাও উইস করার জন্য প্রহর গুনে। ভালো লাগে যখন কেউ আমাকে উইস করে।

সঙ্গীতাঙ্গনঃ সঙ্গীত নিয়ে আপনার পরিকল্পনা কি?
পড়শীঃ আমি সঙ্গীত জগতের মানুষ, সঙ্গীত নিয়ে আমার স্বপ্ন দেখা। আমার ইচ্ছে সঙ্গীত নিয়ে দেশ ও দেশের বাহিরে কাজ করতে চাই। কতটা সফল হবো তা জানি না।

সঙ্গীতাঙ্গনঃ সময় দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ এবং সঙ্গীতাঙ্গনের পক্ষ থেকে আবারো জন্মদিনের শুভেচ্ছা।
পড়শীঃ আপনাকে ধন্যবাদ। এবং সঙ্গীতাঙ্গনকেও ধন্যবাদ। – রবিউল আউয়াল…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: