দুই বাংলার জনপ্রিয় শিল্পী সমরজিৎ রায় এর আজ জন্মদিন

সঙ্গীত জগতের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র সমরজিৎ রায়, ভারত এবং বাংলাদেশে রয়েছে যাঁর সমান জনপ্রিয়তা। একজন আদর্শ সঙ্গীতজ্ঞ শিল্পী সমরজিৎ রায়। আজ ১লা আগস্ট এই তরুণ সঙ্গীত শিল্পীর শুভ জন্মদিন। সমরজিৎ রায়ের জন্ম কক্সবাজারের চকরিয়ায়। তাঁর বাবা নেপাল চন্দ্র রায় একজন স্বনামধন্য শিক্ষক, মা রত্না রায় গৃহিণী। বড় দুই ভাই বিশ্বজিৎ রায় ও সত্যজিৎ রায় পেশায় চিকিৎসক এবং ছোট বোন শর্মিলা রায় সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট।

জন্মদিন উপলক্ষ্যে সঙ্গীতাঙ্গনের সাথে কথা হয় শিল্পী সমরজিৎ রায়ের। জন্মদিনের কোন অনুষ্ঠান হবে কিনা জানতে চাইলে জবাবে বলেন, “আমি ঘটা করে কোনদিনই নিজের জন্মদিন পালন করিনি। জন্মদিনে অগণিত ভক্ত এবং শুভাকাঙ্ক্ষীরা আমাকে শুভ কামনা জানান, এতেই আমি যথেষ্ট খুশী।
গত বছর জন্মদিন বাবা, মা’র সাথে কাটিয়েছিলাম আমার গ্রামের বাড়িতে। এবার কাজের সুবাদে ঢাকাতেই আছি। তাই স্বাভাবিক ভাবেই একা একাই কাটবে এবারের জন্মদিন।
তবে জন্মদিনে কোন অনুষ্ঠান না থাকলেও আগামী ৪ আগস্ট শুক্রবার সকাল ৮.১০ টায় “এনটিভিতে” সরাসরি গানের অনুষ্ঠান ‘ছুটির দিনের গান’ এ আপনাদের গান শোনানোর জন্য হাজির হবো। প্রায় দেড় ঘন্টা ধরে শ্রোতাদের পছন্দের গানগুলো শোনানোর সুযোগ সেদিন পাবো। যেহেতু ওইদিন শ্রদ্ধেয় কিশোর কুমার এর জন্মদিন, তাই ওনাকে অনুষ্ঠানটি উৎসর্গ করা হবে এবং স্বাভাবিকভাবেই অন্য গানের পাশাপাশি ওনার গাওয়া কিছু গানও গাওয়ার চেষ্টা করবো।

স্বনামধন্য এই শিল্পী ২০০০ সালে ভারত সরকারের বৃত্তি নিয়ে সঙ্গীতের উপর পড়াশোনা করার জন্য চলে যান দিল্লীতে। সেখানে গান্ধর্ভ মহাবিদ্যালয় থেকে উচ্চতর ডিগ্রী নেন। সঙ্গীত বিশারদের চূড়ান্ত পরীক্ষায় সারা ভারতবর্ষে প্রথম স্থান অধিকার করেন এবং অর্জন করেন বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ এ্যাওয়ার্ড যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো পন্ডিত ডি.বি পলুস্কর এ্যাওয়ার্ড, হরি ওম ট্রাস্ট এ্যাওয়ার্ড,সঙ্গীতা বসন্ত বেন্দ্রে এ্যাওয়ার্ড,বাসুদেব চিন্তামন বাগমারে এ্যাওয়ার্ড, নলিনী প্রতাপ কানবিন্দে এ্যাওয়ার্ড, সুশীলা এ্যাওয়ার্ড, সুখবর্ষা রায় এ্যাওয়ার্ড ইত্যাদি।

শ্রী নির্মলেন্দু চৌধুরীর কাছে তার প্রথম সংগীত শিক্ষা শুরু হয়। এরপরে সমরজিৎ যাঁদের কাছে সঙ্গীতে তালিম নেন তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন ভারতের প্রখ্যাত গুরু পদ্মশ্রী পন্ডিত মধুপ মুদ্গল এবং পদ্মশ্রী পন্ডিত অজয় চক্রবর্তী প্রমুখ। গানের পাশাপাশি সমরজিৎ চন্ডীগড়ের প্রাচীন কলাকেন্দ্র থেকেও তবলায় সঙ্গীত বিশারদ ডিগ্রী অর্জন করেন।
শিল্পী সমরজিৎ যে বিখ্যাত গুনীদের সঙ্গে কাজ করার সুযোগ এবং একান্ত সান্নিধ্য পেয়েছেন তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন মান্না দে, মৃণাল চক্রবর্তী, অনুপ জলোটা, পন্ডিত যশরাজ, পন্ডিত শিবকুমার শর্মা, পন্ডিত হরিপ্রসাদ চৌরাশিয়া, ওস্তাদ জাকির হোসেন, জগজিৎ সিং, কবিতা কৃষ্ণমূর্তি, অনুরাধা পাডোয়াল, হরিহরণ, কুমার শানু, নির্মলা মিশ্র, অজয় দাস, বটকৃষ্ণ দে, শ্রাবন্তী মজুমদার প্রমুখ।

মহাত্মা গান্ধী, ইন্দিরা গান্ধী, রাজীব গান্ধী, চরণ সিং সহ ভারতের ভূতপূর্ব অনেক প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতিদের জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকীতে তাঁদের সমাধিতে সরকারিভাবে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নিয়মিতভাবে অংশ নেন সমরজিৎ, যেসব অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী,রাষ্ট্রপতি, সোনিয়া গান্ধীসহ সব গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিগণ অংশ নেন। তাছাড়া ভারতের ভূতপূর্ব রাষ্ট্রপতি প্রয়াত আব্দুল কালাম আজাদের আমন্ত্রণে ৩বার রাষ্ট্রপতি ভবনে মধ্যাহ্নভোজন এবং সঙ্গীত আসরে অংশ নেওয়ার সৌভাগ্য হয়েছে সমরজিতের।

ভারতের জনপ্রিয় চ্যানেল এমএইচ১ (MH1) এর একটি রিয়েলিটি শোতে বিচারকের দায়িত্বও পালন করেন সমরজিৎ। দূরদর্শন চ্যানেলে নিয়মিতভাবে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নেন তিনি। ‘ডিডি ভারতী’ চ্যানেলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেছিলেন কবিতা কৃষ্ণমূর্তির সঙ্গে। দিল্লীতে গান্ধর্ভ কয়ারের অন্যতম সদস্য হিসেবে বেলজিয়ামের বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে ইউরোপের প্রখ্যাত সঙ্গীত পরিচালক ডির্ক ব্রুসির সঙ্গে কাজ করার সুযোগ পান সমরজিৎ।

দিল্লীতে সমরজিতের অন্যতম শিষ্যদের নিয়ে গঠিত গ্রুপ ‘রাগিণী’ ভারতের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে অনেক সুনাম অর্জন করে। ভারতের মৈথিলী ভাষার ছবি ‘মুখিয়া জী’ তে সমরজিৎ প্রথম প্লেব্যাক করেন।
বিভিন্ন সময়ে ভারত,বাংলাদেশ,জার্মানী,বেলজিয়াম সহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অনুষ্ঠানে অংশ নেন তিনি।

তাছাড়া চ্যানেল আই, আরটিভি, এনটিভি, দেশ টিভি, বাংলাভিশন, মাছরাঙা, এসএ টিভি, এটিএন বাংলা, মাই টিভি সহ দেশের প্রায় প্রতিটি টিভি চ্যানেলে নিয়মিত ভাবে অনুষ্ঠান করে যাচ্ছেন শিল্পী সমরজিৎ রায়।
এই পর্যন্ত হিন্দী ও বাংলা মিলিয়ে মোট ৭টি এ্যালবাম প্রকাশিত হয়। প্রথম বাংলা দ্বৈত এ্যালবাম ‘অচেনা একটা দিন’ প্রকাশিত হয় ২০০৯ সালে ভজন সম্রাট অনুপ জলোটার সঙ্গে এটিএন মিউজিকের ব্যানারে, এই এ্যালবামে তিনি সমরজিতের সুরে গান করেন।
ভারতের মিস্টিকা মিউজিকের ব্যানারে প্রথম হিন্দী এলবাম ‘তেরা তসব্বুর’ প্রকাশিত হয় ২০১০ সালে যা ২০১১ সালে ভারতের জিমা এওয়ার্ডের জন্য ‘সেরা জনপ্রিয় এ্যালবাম’ হিসেবে মনোনয়ন পায়।
এরপরে ২০১১ সালে কোলকাতায় ‘ভাবনা রেকর্ডস’ এর ব্যানারে রবীন্দ্র সঙ্গীতের এ্যালবাম ‘রবি রঞ্জনী’র মোড়ক উন্মোচন করেন প্রখ্যাত অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়।
২০১২ সালে বাংলাদেশের ‘জি সিরিজ’ থেকে প্রকাশিত হয় বাংলা একক এ্যালবাম ‘এক চিলতে রোদ’।
২০১৪ সালে দিল্লীতে হিন্দী ভজনের এ্যালবাম ‘প্রতিধ্বনি’ র মোড়ক উন্মোচন করেন শিল্পী অনুপ জলোটা।
২০১৫ সালে ভারতের মিস্টিকা মিউজিক থেকে প্রকাশিত হয় হিন্দী এ্যালবাম ‘ফিকর’ যার মোড়ক উন্মোচন করেন বলিউডের প্রখ্যাত শিল্পী ঊষা উত্থুপ। এতে দ্বৈত কন্ঠে গান করেন বলিউডের প্রখ্যাত শিল্পী রূপরেখা ব্যানার্জী এবং সঞ্চিতা।
২০১৬ সালে বাংলাদেশের ‘বাংলাঢোল’ এর ব্যানারে প্রকাশিত হয় সমরজিৎ এর ৭ম এ্যালবাম ‘গোধূলিবেলা’। এতে দ্বৈত কন্ঠে গান করেন বলিউডের প্রখ্যাত শিল্পী অন্বেষা দত্তগুপ্ত এবং এ্যালবামটির গানের গীতিকার ও সুরকারেরা হলেন স্বর্ণযুগের পুলক বন্দোপাধ্যায়, মৃণাল চক্রবর্তী, বটকৃষ্ণ দে, অজয় দাস প্রমুখ। সেই সাথে অন্বেষার সঙ্গে দ্বৈত ‘তোমার কাছে’ গানটির মিউজিক ভিডিও প্রকাশিত হয়।
সমরজিৎ এর গাওয়া জনপ্রিয় গানগুলোর উল্লেখযোগ্য হলো: ও রূপসী চাঁদ/ ভুলে যেতে বোলোনা/ বালম মোরে/ দেখ ওনকো/ তুম বিন প্রভৃতি গান।
দিল্লীতে সঙ্গীতের উপর পড়াশোনা শেষ করে সমরজিৎ প্রায় ১১ বছর দিল্লীর গান্ধর্ভ মহাবিদ্যালয়ে উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতে শিক্ষকতা করেন। ২০১৬ সালে বাংলাদেশে লাক্স আরটিভি স্টার এ্যাওয়ার্ড এর সম্মান পান তিনি।

আগেকার দিনের এবং বর্তমানের সঙ্গীতের মধ্যে তফাৎ জানতে চাইলে শিল্পী জানান, “আসলে আগেকার দিনের বেশিরভাগ শিল্পীরাই সংগীতে যথাযথ ভাবে তালিম নিয়ে পরিশ্রমের মাধ্যমে গলা তৈরি করে তারপর গান করতেন, তাই হয়তো এখনো পুরোনো দিনের গানগুলোই শুনতে আমাদের বেশী ভালো লাগে। কিন্তু আজকাল মনে হয় শ্রোতাদের চেয়ে শিল্পীদের সংখ্যাই বেড়ে গেছে। এটা যদিও খুব ইতিবাচক, তবুও আমি বলবো গানকে যদি প্রফেশনালী আমরা নিতে চাই তবে অবশ্যই এটার প্রতি অনেক দায়িত্ব আমাদের থাকবে, আমাদের অবশ্যই সংগীতের জন্য অনেক সময় দিতে হবে এবং উপযুক্ত গুরুর কাছে তালিম নিয়ে সাধনা অব্যাহত রাখতে হবে। শেখার কোন শেষ নেই। শিখে-জেনে গাওয়া এবং না শিখে-না জেনে গাওয়ার মধ্যে নিশ্চয়ই বড় একটি ব্যবধান সবসময়ই থাকে। আশা করি শিল্পীদের এবং শ্রোতাদের সেটা বোঝার ক্ষমতা রয়েছে।

সঙ্গীতাঙ্গনের পক্ষ থেকে শিল্পী সমরজিৎ রায়ের জন্মদিনে আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা রইলো। শুভ জন্মদিন। – মোঃ মোশারফ হোসেন মুন্না…

ছবি – আরাফাত হোসেন শোভন…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: