বানভাসি মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সকলকে আহবান…

ভূমিহীন, নিরাশ্রয়, অসহায়, বানভাসি মানুষের চিৎকারে কাঁদছে বাংলাদেশ। শুধু মানুষ নয় গৃহপালিত পশুর জীবন এখন বড় বিপর্যয়ে, ফসলের ক্ষেত, কৃষকের পরিশ্রম সবই এখন বন্যার শ্রোতে ভেসে যাচ্ছে। বাংলাদেশে বন্যা পরিস্থতি, বিশেষ করে উত্তরাঞ্চলের দিনাজপুর, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট জেলায় ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে।
সরকারি হিসাবে ২১টি জেলায় অন্তত ৩৩ লাখ লোক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
অনেকগুলো জেলায় রাস্তা, রেললাইন ডুবে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। উপদ্রুত লাখ লাখ মানুষ সরকারি আশ্রয়কেন্দ্র ছাড়াও উঁচু জায়গায় গিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন।
খাদ্য এবং খাবার পানির অভাবে সবাই খুব অসহায় হয়ে পড়েছে, সরকারি বা বেসরকারি সংস্থা, কারও কাছ থেকেই সেভাবে ত্রাণ সহায়তা তাঁরা পাচ্ছেন না।
কোলের শিশুরদের নিরাপদ খাবার জোগাড় করা নিয়ে চরম দুরবস্থায় পড়েছেন বানভাসি মায়েরা।

বন্যায় লাখ লাখ হেক্টর জমিই পানির নিচে । ফলে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পরিস্থিতি সামলে ওঠা বেশ কঠিন হয়ে পড়েছে।
অতিরিক্ত বৃষ্টি এবং উজানে ভারত থেকে যে পানির ঢল এসেছে, তা এখানকার নদীগুলো ধারণ করতে পারেনি এবং অনেক নদীর বাঁধ ভেঙ্গে গেছে।
আর বাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ায় অনেক উঁচু হয়ে জ্বলোচ্ছাসের মতো হু হু করে পানি এসেছে বিস্তীর্ণ এলাকায়। এমন ভয়াবহ পানির তোড়ে অনেক এলাকার মানুষ ভিটে মাটি সব ফেলে শুধু নিজের জীবনটা নিয়ে বেরিয়ে এসেছে।
বহু এলাকাতেই রাস্তা-রেললাইন ডুবে গিয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত।
উত্তর পূর্বে সিলেট অঞ্চলে সুনামগঞ্জ জেলায় বন্যায় এবার বেশি ক্ষতি হয়েছে।
রাজবাড়ী, শরিয়তপুর, মুন্সিগঞ্জসহ মধ্যাঞ্চলের জেলাগুলোতে বন্যার পানি আসছে।
সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রনালয় সহ দেশের সবাই যদি এগিয়ে আসি তাহলে অনেক সহজেই, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে পর্যাপ্ত ত্রাণ সহায়তা পৌঁছিয়ে দিতে পারবো। সবার একতা এবং সবার একটু একটু সহযোগীতায় আলোর মুখ দেখতে পারে বানভাসি অসহায় মানুষ গুলো।
সঙ্গীতাঙ্গন এর সবাইকে সহ সকল শ্রেণীর মানুষদের আহবান করছি দুর্গত অসহায় এই বানভাসি মানুষের পাশে দাঁড়াতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *