কানাডায় পালিত হলো সপ্তম বার্ষিকী রবীন্দ্র উৎসব…

“আমায় নহে গো ভালোবাস শুধু
ভালোবাস মোর গান,
বনের পাখিরে কে চিনে রাখে
গান হলে অবসান
ভালোবাস মোর গান।”
বিশ্বখ্যাত কবি ও গীতিকার নোবেল বিজয়ী কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। কানাডার একটি শহর গ্রেটার ভ্যানকুভারে অনুষ্ঠিত হলো সপ্তম বারের মত বার্ষিক রবীন্দ্র উৎসব। সেখানকার গেটওয়ে থিয়েটারে গত শনি ও রবি বারে বিশাল মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হলো এই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এবছর অনুষ্ঠানের প্রতিপাদ্য বিষয় নির্ধারণ করা হয় “রবীন্দ্র সঙ্গীতে বাউল সুর ও দর্শনের প্রভাব”। এ বিষয়ের উপর ভিত্তি করে সফল ও সুন্দর ভাবেই উৎসবটি ধারাবাহিক ভাবে পালিত হয়। এর আগে আরো ছয় বার এই অনুষ্ঠানটি পালিত হয়েছে। মজার বিষয় হলো এবারের অনুষ্ঠানে মূল আর্কষণে। অনুষ্ঠানে ফুটে ওঠেছিল বাউল অঙ্গনের প্রতিচ্ছবি।

রবীন্দ্রনাথের বিখ্যাত নাটক “ডাকঘর” এর পটভূমির উপর ভিত্তি করে নাচ ও অভিনয় পরিবেশন করা হয় এবং নাচ অভিনয় এর সাথে বাউল অঙ্গনের রবীন্দ্রসঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। এ অনুষ্ঠানের দিকনির্দেশক হিসেবে ছিলেন শঙ্খনাদ মল্লিক ও অভীক দে। এবং নৃত্য পরিচালনায় ছিল ছায়ানটের প্রাক্তন শিক্ষিকা অর্ণ কমলিকা। উক্ত অনুষ্ঠানে আরও ছিল লালনগীতি, হিন্দুস্তানী শাস্ত্রীয় সঙ্গীত, যন্ত্রসঙ্গীত, কর্মশালা এবং বহুজাতিক কবিতা পাঠ। রবীন্দ্রনাথের লেখা গান কবিতা চিত্রনাট্য উপন্যাস, ছোট গল্প, রম্যরচনা ইত্যাদি সর্বকালের সর্ব সময় জনপ্রিয়তার শির্ষে ছিল। শুধু বাংঙ্গালীরা নয় বিশ্বের প্রায় অনেক দেশেই রবীন্দ্রনাথের গান কবিতা অনুবাদের মাধ্যমে হলেও তারা খুব ভালোবাসে। আমরা বাঙ্গালী হিসেবে এটা আমাদের জন্য গর্ভ। আমাদের অহংকার। – মোঃ মোশারফ হোসেন মুন্না

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: