মুহর্তের মুহূর্তগুলো নিয়ে আসছেন আইয়ুব বাচ্চু…

১৯৭৮ সালে ফিলিংস ব্যান্ডের হাত ধরে সঙ্গীতের বীজ বপন করা শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু। ব্যন্ড জগতের একজন খ্যাতিমান কন্ঠের গায়ক আইয়ুব বাচ্চু। তাঁর কন্ঠে গাওয়া প্রথম গানটি ছিল ‘হারানো বিকেলের গল্প’। গানটির কথা লিখেছিলেন শহীদ মাহমুদ জঙ্গী। যার মাধ্যমে অভিষেক হয় এবি-র। তারপর ১৯৮০ থেকে ১৯৯০ সালে তিনি সোলস ব্যান্ডের সাথে যুক্ত ছিলেন। ‘রক্তগোলাপ’ নামে তার প্রথম একক এ্যালবাম বের হয় ১৯৮৬ সালে। প্রথম এ্যালবামে সফলতার মুখ না দেখলেও ১৯৮৮ তে তার দ্বিতীয় একক ‘এ্যালবাম ময়না’ এর মাধ্যমে জনপ্রিয়তা পায়। সেই থেকে গানের পাগল বাচ্চু একের পর এক গেয়ে যেতেই থাকে। ‘চলো বদলে যাই’ বাংলাদেশের সঙ্গীত জগতে অন্যতম জনপ্রিয় একটি গান। এছাড়াও এই এ্যালবামের বিশেষ করে ‘কষ্ট কাকে বলে’, ‘কষ্ট পেতে ভালোবাসি’, ‘অবাক হৃদয়’, ও ‘আমিও মানুষ’ গানগুলোর কথা সবার হৃদয় ছুঁয়ে যায়।

তিনি অনেক বাংলা ছবিতে প্লেব্যাক করেছেন। “অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে” বাংলা ছবির অন্যতম একটি জনপ্রিয় গান। এটি তাঁর গাওয়া প্রথম চলচ্চিত্রের গান। তিনি একক ও ব্যান্ড দুই ধরনের এ্যালবামই বের করেছেন। একক এ্যালবামের মধ্যে, রক্তগোলাপ,ময়না, কষ্টের সময় একা, প্রেম তুমি কি, দুটি মন, কাফেলা বলিনি কখনো, জীবনের গল্প। আর ব্যান্ড এ্যালবামের মধ্যে আছে, এলআরবি, সুখ, তবুও, ঘুমন্ত শহরে, ফেরারী মন, স্বপ্ন ইত্যাদি।

সর্বশেষ ‘রাখে আল্লাহ মারে কে’ এ্যালবাম প্রকাশ হয়। এর মধ্যে দীর্ঘ দিন বিরতি দিয়ে আবার আসছে তার নতুন একক এ্যালবাম ‘মুহূর্তের মুহূর্তগুলো’। গানের কথা সুর গঠন সব একটু অন্যরকম ভাবে সাজানো হবে। তিনি বলেন এবারের গান গুলো একটু ডিফারেন্ট হবে। নির্দিষ্ট কোন ছক অনুসরণ হবে না এবারের গানে। কোন্ গান কোন্ সময় শেষ হবে শ্রোতারা তা বুঝতেই পারবেনা বলে ব্যক্ত করেন বাচ্চু। তার নিজের ইচ্ছে মতো করে সাজাবেন এই এ্যালবাম। নতুন এ এ্যালবামটি কয়েকটি অসাধারণ গান দিয়ে সাজানো হবে। সবগুলো গান লিখেছেন নিয়াজ আহমেদ অংশু। আশা করি অতি তাড়াতাড়ি গান গুলো শ্রোতার শ্রবণে আসবে। সুস্থ্য সুন্দর কল্যাণময় জীবন কামনায়। – মোঃ মোশারফ হোসেন মুন্না

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: