Press "Enter" to skip to content

কারও কাছে হাত পাতবো না; আমার গানের মেধাস্বত্ব চাই – লাকী আখন্দ…

‘আশির দশক এর এক নন্দিত তারকা “লাকী আখন্দ”। তিনি একসাথে সুরকার, গীতিকার এবং গায়ক। আমাদের দেশীয় সঙ্গীতে অসংখ্য শিল্পীদের পথ প্রদর্শকও তিনি। এবং অসংখ্য জনপ্রিয় গানের পাশাপাশি দেশ বরেণ্য কন্ঠ শিল্পী শ্রদ্ধেয়, ‘সৈয়দ আব্দুল হাদীর জনপ্রিয় গান- “সখী চলনা জলসা ঘরে এবার যাই”, ও “রুনা লায়লার – মাগো ধন্য হল জীবন আমার, তোমায় ভালবেসে”, এবং এ প্রজন্মের জনপ্রিয় গায়ক আসিফ আকবরের – আকাশের চাঁদ। ” গান গুলোর সুরকার লাকী আখন্দ।
সবার প্রিয় এই মানুষটি এখন ফুসফুসে সংক্রমণে অসুস্থ হয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ( বিএসএমএমইউ) করোনারি কেয়ার ইউনিট ( সিসিইউ) চিকিৎসাধীন রয়েছেন। দেশের সুনামধন্য গায়ক কুমার বিশ্বজিৎ সব সময় লাকী আখন্দের পাশে রয়েছেন। কুমার বিশ্বজিৎ মিডিয়া কে জানান, “তিনি চাইলে শিল্পী সমাজ ওনার পাশে দাঁড়াবে, ওনাকে সহযোগীতা করবে। এর জবাবে লাকী আখন্দ বলেন, ‘তোমরা এমন কিছু করো না যাতে শিল্পীদের অবমূল্যায়ন হয়, শিল্পীর সম্মান নষ্ট হয়। শিল্পীর সম্মান অনেক বেশী। আমার জন্য সবাইকে দোয়া করতে বলো।
অসুস্থ সংগীতশিল্পী লাকী আখন্দকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ব্যাংককে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখানকার পায়থাই হাসপাতালে তাকে নেয়া হয়েছে বলে জানান বড় মেয়ে মাম মিনতী। এদিকে জানা গেছে লাকী আখন্দের চিকিৎসা সহায়তার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবর একটি চিঠি পাঠিয়েছেন তার শুভাকাঙ্ক্ষীরা। কিন্তু চিকিৎসার জন্য কারও কাছে সাহায্য চাইবেন না লাকী আখন্দ। এমনকি
তার চিকিৎসার জন্য কোনো কনসার্ট বা তহবিল সংগ্রহ কার্যক্রমও যেন না হয়, সেজন্য ভক্ত ও সহকর্মীদের অনুরোধ করেছেন তিনি। তিনি বলেন, ‘আমি কোনো পারিশ্রমিক ছাড়াই অনেক গান করেছি। আমার গানগুলো এখন অনেকেই গাইছেন। টিভি চ্যানেল, এফএম রেডিও, মোবাইল অপারেটরে গানগুলো বাজছে। তারা আমাকে সেই গানগুলোর মেধাস্বত্ব দিক। মেধাস্বত্ব বাবদই তো আমরা অনেক টাকা পাই। চিকিৎসার জন্য আমি কারও কাছে হাত পাতবো না।’
এদিকে লাকী আখন্দকে দেখতে গানের মানুষরা ভিড় করতে শুরু করেছেন হাসপাতালে। মঙ্গলবার দুপুরে এসেছিলেন কুমার বিশ্বজিৎ, শওকত আলী ইমন, কবির বকুল। সুরকার, গীতিকার ও গায়ক লাকী আখন্দের প্রথম একক অ্যালবাম ‘লাকী আখন্দ’ প্রকাশিত হয় ১৯৮৪ সালে। সেই অ্যালবামের ‘এই নীল মণিহার’, ‘আমায় ডেকো না’, ‘মামনিয়া’, ‘আগে যদি জানতাম’ গানগুলো ভীষণ জনপ্রিয় হয়। তার লেখা অন্য জনপ্রিয় গানগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘যেখানে সীমান্ত তোমার’, ‘কবিতা পড়ার প্রহর এসেছে’, ‘আবার এলো যে সন্ধ্যা’, ‘কে বাঁশী বাজায় রে’। আমরা লাকী আখন্দের সু’স্বাস্থ কামনা করি এবং দোয়া প্রার্থনা করি।
অলংকরন – মাসরিফ হক….

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: