Press "Enter" to skip to content

১২তম চ্যানেল আই মিউজিক এ্যাওয়ার্ড পেলেন যারা…

যেকোনো সম্মাননা একজন শিল্পীকে আরো প্রেরণা এবং দায়িত্ববোধ বাড়িয়ে দেয়। শিল্পীদের প্রাপ্তি সম্মানী নিয়ে চ্যানেল আইয়ের ব্যাপক আয়োজন।
এই জমকালো আয়োজনে বাংলাদেশের প্রবীণ ও নবীন সঙ্গীতশিল্পীদের সম্মাননা জানালো চ্যানেল আই। ১২তম চ্যানেল আই মিউজিক অ্যাওয়ার্ড ২০১৬-কে ঘিরে ২৯শে সেপ্টেম্বর শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের হল অব ফেমে বসেছিল দেশের সঙ্গীতাঙ্গনের তারকাদের মিলনমেলা। এ অনুষ্ঠানে প্রদান করা হয় সঙ্গীতশিল্পী মোঃ খুরশীদ আলমকে আজীবন সম্মাননা। তার হাতে আজীবন সম্মাননা স্মারক তুলে দেন সঙ্গীতশিল্পী ফেরদৌসী রহমান। সম্মাননা পত্র তুলে দেন সঙ্গীতশিল্পী সৈয়দ আবদুল হাদী। অর্থমূল্য এক লাখ টাকার চেক তুলে দেন পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ট্রান্সকম বেভারেজ লিমিটেডের ডিরেক্টর খুরশিদ ইরফান চৌধুরী। এর আগে উত্তরীয় পরিয়ে শিল্পীকে বরণ করে নেন ইমপ্রেস টেলিফিল্ম ও চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর ও পরিচালক মুকিত মজুমদার বাবু। অনুষ্ঠানে প্রথমবারের মতো বিশেষ সম্মাননা দেয়া হয় সংগীতশিল্পী শাম্মী আখতারকে। অসুস্থতাজনিত কারণে তিনি আসতে পারেননি। তার পক্ষ থেকে সম্মাননা স্মারক ও অর্থমূল্য ৫০ হাজার চেক গ্রহণ করেন তার স্বামী আকরামুল ইসলাম ও মেয়ে।

অনুষ্ঠানে দেশের চার গুণী সঙ্গীত পরিচালক আলাউদ্দিন আলী, শেখ সাদী খান, আলম খান ও আলী হোসেনকেও সম্মাননা দেয়া হয়। পরে তারা তাদের সেরা গানের কয়েকটি লাইন স্বকণ্ঠে পরিবেশন করে দর্শক-শ্রোতাদের মুগ্ধ করেন। আজীবন সম্মাননা প্রাপ্তির অনুভূতি প্রকাশ করে খুরশীদ আলম বলেন, জীবদ্দশায় এ সম্মাননা পেয়ে নিজেকে খুবই গর্বিত মনে করছি। এর আগে স্বাগত বক্তব্যে ফরিদুর রেজা সাগর বলেন, গত ১১টি আসর ধরে দেশের সঙ্গীতাঙ্গনে গুণীদের সম্মাননা দিয়ে আসছে চ্যানেল আই। গুণীদের সম্মাননা দিয়ে আমরা নিজেরাও সম্মানিত। এই মিউজিক অ্যাওয়ার্ড এখন বাংলাদেশ নয়, দক্ষিণ এশিয়ার সঙ্গীত বিষয়ক সবচেয়ে বড় আয়োজন। খুরশিদ ইরফান চৌধুরী বলেন, চ্যানেল আই মিউজিক অ্যাওয়ার্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পেরে আমি ও আমার প্রতিষ্ঠান গর্বিত।

অনুষ্ঠানের সূচনা হয় সানী জুবায়ের সঙ্গীত পরচালনায় বর্ষাবিষয়ক কয়েকটি রাগের ওপর নির্মিত নৃত্যশিল্পী তুষার ও তার দলের কোরিওগ্রাফির মধ্য দিয়ে। একঝাঁক সহশিল্পী নিয়ে সঙ্গীত পরিবেশন করেন শফি মন্ডল, মমতাজ ও রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা। একক সংগীত পরিবেশন করেন নগর বাউল জেমস। ছিল চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা ও সঙ্গীতশিল্পী ইমরনের দ্বৈত পরিবেশনা। ত্রিশজন সহশিল্পীকে নিয়ে ছিল চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাসের বিশেষ পারফর্মেন্স।

১২তম চ্যানেল আই মিউজিক অ্যাওয়ার্ড বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন-চ্যানেল আই এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, পরিচালক ও বার্তাপ্রধান শাইখ সিরাজ, পরিচালক আবদুর রশীদ মজুমদার, মুকিত মজুমদার বাবু, জহির উদ্দিন মাহমুদ মামুন, ফেরদৌসী রহমান, সৈয়দ আবদুল হাদী, রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, ফরিদা পারভীন, খায়রুল আনাম শাকিল, ফুয়াদ নাসের বাবু, মানাম আহমেদ, আফজাল হোসেন, সুবর্ণা মুস্তোফা, আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল, সুবীর নন্দী, সামিনা চৌধুরী ও মিতালী মুখার্জী। এবার প্রদান করা হয় সঙ্গীতে ১৩টি ক্যাটাগরিতে ক্রিটিক অ্যাওয়ার্ড ও ৫টি ক্যাটাগরিতে পপুলার চয়েস অ্যাওয়ার্ডসহ মোট ১৮টি অ্যাওয়ার্ড। পুরস্কারপ্রাপ্তরা হচ্ছেন-ক্রিটিক: রবীন্দ্র সঙ্গীত – অণিমা রায় (এ্যালবাম – মাতৃভূমি), নজরুল সঙ্গীত – নাশিদ কামাল (এ্যালবাম – গানে গানে নজরলের জীবনী), লোক সঙ্গীত – শফি মন্ডল(এ্যালবাম – অধরা), শ্রেষ্ঠ গীতিকার – আসিফ ইকবাল(এ্যালবাম – মুন এর গান – তুই আমার মন ভালোরে), সঙ্গীত পরিচালক – শফিক তুহিন (এ্যালবাম -চুপকথা রূপকথা, গান – নীল সামিয়ানা), মিউজিক ভিডিও – তানীম রহমান অংশু (এ্যালবাম ও গান- ঝুম), কাভার ডিজাইন – নাহিদ (নকশী কাঁথার গান), সাউন্ড ইঞ্জিনিয়ার – পাভেল আরীন (খেয়াল পোকা), উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত (কণ্ঠ) – পিয়াংকা গোপ (ঠুমরী), আধুনিক গান – ফাহমিদা নবী (এ্যালবাম-সাদা কালো, গান-অন্ধকার), সেরা ব্যান্ড – পার্থিব (এ্যালবাম – (স্বাগত বাংলাদেশ),
নবাগত শিল্পী – মেহেদী হাসান(এ্যালবাম – আয়না ফিরে, গান – ইচ্ছেগুলো রাজি) এবং ছায়াছবির গান – জেমস (গান-বিধাতা, ছায়াছবি-সুইটহার্ট)। পপুলার চয়েস : আধুনিক গান – কুমার বিশ্বজিৎ (এ্যালবাম – স্বপ্ন সমুদ্দুর, গান – কখনও তো বলিনি), নবাগত শিল্পী – শাহিন খান (আনকোরা), সেরা ব্যান্ড – অবসকিওর (ক্র্যাক প্লাটুন), ছায়াছবির গান – ইমরান (ছবি:মুসাফির, গান:আলতো ছোঁয়াতে) এবং মিউজিক ভিডিও – রম্য খান (এ্যালবাম – মেঘেরা, গান – মেঘেরা ঢাক ঢোল বাজিয়ে। ১২তম চ্যানেল আই মিউজিক অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন ফারজানা ব্রাউনিয়া। পরিচালনায় ছিলেন ইজাজ খান স্বপন। এই পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানটি আগামী ৬ই অক্টোবর চ্যানেল আইতে প্রচার করা হবে। – মোহাম্মদ আমিন আলীফ

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: