ক্রিকেট ছেড়ে গান…

মানুষ আমরা স্বপ্ন বিলাসী। স্বপ্ন দেখতে ভালোবাসি। কিন্তু কারো দেখা স্বপ্ন হয় দূ্স্বপ্ন। আবার কারো স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যায়। আবার কারো স্বপ্ন সত্যি হয়ে যায়। এমনি এক স্বপ্নদেখা বাবা যার সন্তান বড় হয়ে কণ্ঠশিল্পী হবে এই ভেবে কিংবদন্তি শিল্পী শচীন দেব বর্মণের নামে ছেলের নাম রাখেন বাবা রমেশ টেন্ডুলকার। বুজতেই পারছেন কার কথা বলছি। সে হচ্ছে খ্যাতিমান ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকার। হারমোনিয়াম, গিটার নয়, ছেলে শচীন টেন্ডুলকার বেছে নেন ব্যাট ও বল। তাতে অবশ্য ক্ষতি হয়নি। খ্যাতিতে শচীন দেব বর্মণকেও ছাড়িয়ে যান শচীন টেন্ডুলকার। তবে বাবার স্বপ্নটা যে অপূর্ণ থেকে গেল! এই ভাবনাটা কি ছেলে হিসেবে ভাববেনা? অব্যশই ভাববে আর সেই ভাবনা থেকেই হয়তো গানের রেকর্ডিংয়ে নেমে পড়লেন শচীন টেন্ডুলকার।

ব্যাট-বল ছাড়ার পর এবার গান গাইতে নেমে গেলেন ভারতের ক্রিকেট ঈশ্বর। তাও আবার যেন তেন কারো সঙ্গে নয়, তারকা শিল্পী সনু নিগামের সঙ্গে। সনু নিগামের গান খুব পছন্দ শচীনের। তাই প্রথম গানটি প্রিয় শিল্পীর সঙ্গেই রেকর্ড করলেন শচীন। ব্যাট হাতে তো তারকাদের তারকা। গানের ক্ষেত্রে কেমন? উত্তরটা দিয়েছেন সনু নিগাম। ‘শচীনের কণ্ঠ ভালো, সুরও ঠিকঠাক। তার কণ্ঠ ঠিক করতে কিউরেটর ডাকতে হয়নি! ব্যাট হাতে যার এত প্রতিভা, সবকিছুর সঙ্গেই মানিয়ে নেওয়াটা তার জন্য খুব কঠিন নয়। আর তার মতো একজনের সঙ্গে গান গাওয়াটা আমার সারা জীবনের সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি।’

কোন গান গাইলেন শচীন। জাতে ক্রিকেটার তাই স্বভাতবই ক্রিকেট বিষয়ক গানই গাইবেন শচীন। গানের বিষয় ভারতীয় ক্রিকেটকে ঘিরে। গানের কথাগুলোও জমজমাট ‘গেন্দ আই, বল্লা ঘুমা, মার ছক্কা, শচীন, শচীন নাচো নাচো নাচো সব ক্রিকেট ওয়ালি বিট পে।’ বল এল, ব্যাট ঘুরাও, শচীন ছক্কা মারো, নাচো নাচো নাচো সবাই ক্রিকেট বিটের সঙ্গে। প্রথম দিক কিছুটা অস্বস্তি হলেও দ্রুতই নিজেকে গানের তালের সঙ্গে মানিয়ে নেন শচীন। ৩ মিনিট ৪৪ সেকেন্ডের গানটিতে কপিল দেব, সুনীল গাভাস্কার থেকে শুরু করে সৌরভ গাঙ্গুলী, রাহুল দ্রাবিড়, মহেন্দ্র সিং ধোনিসহ প্রায় সব সতীর্থ তারকা ক্রিকেটারের নাম নিয়েছেন শচীন। গানের ভিডিও প্রকাশ হলে দুদিনে ২০ লক্ষ মানুষ গানটি দেখে। ক’জনার হয় এমন ভাগ্য যার কন্ঠে মধু হাতে যাদু। – মোঃ মোশারফ হোসেন মুন্না

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: