তবলা বাদক বিক্রম ঘোষের আজ জন্মদিন…

বিক্রম ঘোষ ভারতীয় বাঙালি তবলা বাদক। তিনি তবলা গুরু শঙ্কর ঘোষের পুত্র। হিন্দুস্থানী শাস্ত্রীয় সঙ্গীত এবং ফিউশন সঙ্গীত প্রস্তুত করেছেন তিনি। তাঁর সঙ্গীত গভীরভাবে পাতিয়ালা ঘরানার, খেয়াল ও ঠুংরি দ্বারা প্রভাবিত। বিক্রম ঘোষ সঙ্গীত এবং সংস্কৃতিকে নতুন ভাবে পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য পরিচিত, তিনি সঙ্গীত ঘরানার একটি সুবিশাল ক্ষেত্রে নিজেকে সংপৃক্ত করেছেন, শাস্ত্রীয়, রক, আধুনিক, ফিউশন সঙ্গীত থেকে নিয়ে চলচ্চিত্রের সঙ্গীত অবধি। ১৯৬৬ সালের ২০ অক্টোবর পশ্চিম বঙ্গের, কলকাতায় জন্মগ্রহন করেন তিনি। আজ তার শুভ জন্মদিন। তার পিতা তবলা গুরু শঙ্কর ঘোষ ও মা শাস্ত্রীয় গায়িকা শ্রীমতী সংযুক্তা ঘোষ। তিনি লা মারটেনিয়ার কলকাতায় পড়াশুনা শুরু করেন। পরে তিনি যথাক্রমে সেন্ট জেভিয়ার’স কলেজ ,কলকাতা থেকে ইংরাজীতে স্নাতক এবং যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর উপাধি লাভ করেন। তিনি তাঁর বাবা পন্ডিত শঙ্কর ঘোষের কাছে তবলা শেখা শুরু করেন। যিনি ওস্তাদ আলি আকবর খানের সঙ্গে সঙ্গীত করেছেন। বিক্রম ঘোষ, বিখ্যাত সরোদ-বাদক ওস্তাদ আলী আকবর খান এবং সেতার বাদক পন্ডিত রবিশঙ্কর সহ আরো অন্যান্য সঙ্গে সঙ্গীত করেছেন। তিনি একই সঙ্গীতানুষ্ঠানে, তাঁর বাবার সঙ্গেও যুগলবন্দী বাজান। তিনি প্রাক্তন বিটলস জর্জ হারিসনের মৃত্যুর আগে তাঁর সঙ্গে কাজ করেন।

বিক্রম ঘোষকে, বিভিন্ন ভূমিকায় সঙ্গীত জগতে দেখা যায়। তাঁর দীর্ঘ দিনের দল, রিদিমস্কেপ ২০১১ সালে, তাঁদের ১০তম বার্ষিকীতে, নব্য-লয় সঙ্গীতানুষ্ঠান প্রদর্শন করেন। এই ১০তম বার্ষিকী উদযাপনের জন্য কলকাতা ও মুম্বাইতে ফোকট্রনিকের দ্বারা আয়োজিত অনুষ্ঠানে রিদিমস্কেপ গ্রেগ এলিসের সঙ্গে প্রদর্শন করেন। তাঁর দল তাঁদের দ্বিতীয় এ্যালবাম ট্রান্সফরমেসান বের করেন, যা ভারতীয় রেকর্ডিং আর্টস পুরস্কার ২০১২তে শ্রেষ্ঠ ফিউশন এ্যালবাম বলে বিবেচিত হয়। বিক্রম ঘোষ, ত্রৈকলাতে স্কটিস গায়ক, গীতকার রাচেল সেরমান্নি এবং অসমীয়া গায়ক পাপনের সঙ্গে প্রদর্শন করেন। ত্রৈকলা, ব্রিটিশ কাউন্সিল এবং ফোকট্রনিক দ্বারা সংকলিত এবং আয়োজিত। “সুফি-ফিউসান” এ তিনি সঙ্গীত শিল্পী অম্বরীশ দাস ও পার্বতী কুমার, কিবোর্ডিস্ট ইন্দ্রজিৎ দে, এবং ড্রামার অরুণ কুমারের সঙ্গে ফিউসান সুফির অংশ হিসাবে প্রদর্শন করেন। বিক্রম ঘোষ জাল ছায়াছবির সঙ্গীত রচনা করতে সনু নিগমের সঙ্গে যোগ দেন। এছাড়াও অনেক সিনেমার জন্য সঙ্গীত রচনা করেছেন, যার মধ্যে মীরা নায়ারের
লিটল জিজোউও আছে। বিক্রম ঘোষ ২০১০ সালের অক্টোবর মাসে মেল্টিং পট প্রোডাকসন্স নামে তাঁর সঙ্গীত কোম্পানি চালু করেন। বিক্রম ঘোষ দ্বিতীয় গুয়াহাটি আন্তর্জাতিক সঙ্গীত উৎসবের সময় ফিউশন সঙ্গীত প্রদর্শন করছেন ২০১২ সালের ১লা অক্টোবরে তিনি তার বন্দে মাতরম, রচনার জন্য, যাতে সনু নিগম, শঙ্কর মহাদেবন এবং সুনিধী চৌহান সহ ভারতব্যাপী শিল্পীদের দেখান হয়েছে, শ্রেষ্ঠ পপ, রক একক বিষয়শ্রেণীতে অন্তর্ভুক্ত বিশ্ব ভারতীয় গান অ্যাকাডেমি GIMA পুরস্কার লাভ করেন।

২০১২ সালের জুন মাসে তিনি বিশ্ব সঙ্গীত দিবস উপলক্ষে “ওয়ান ওয়ার্ল্ড ফিউসান এক্সট্রাভাগাঞ্জা” নামে একটি কনসার্ট হায়দ্রাবাদে, শিল্পকলা বেদিকা অডিটোরিয়ামে সঞ্চালন করেন। তিনি এমটিভি রুটসের একটি পর্বে উপস্থিত ছিলেন। বিক্রম ঘোষ অনলাইন স্ট্রিমিং মাধ্যমে এক Ace মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য “রিপারকাসন” শিরোনামের একটি পারকাসান কোর্স পড়ান। দীর্ঘ জীবনের সঙ্গীত সাধনার জন্য ভারতীয় সঙ্গীতের তিনি ইতিহাস। আজ তার জন্মদিনে সঙ্গীতাঙ্গন এর পক্ষ থেকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাই। – মোঃ মোশারফ হোসেন মুন্না

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: