আমার শেষ স্বপ্ন…

রাজার পরিচয় বহন করে তার রাজ্যের সিংহাসন আর মুকুট। আর আমি এক রাজার কথা বলছি যার রাজ্যে সে রাজা সিংহাসন ও রাজ্যে দুটোই আছে কিন্তু মুকুটধারী নয়। তিনি হলো আমাদের বাংলার প্রতিটা প্রাণের মানুষ সঙ্গীত শিল্পী এন্ড্রু কিশোর। যার রাজ্যের নাম সঙ্গীত। সঙ্গীতের রাজ্যে তার বিচরণ সর্বকালের ইতিহাসের সাক্ষী। তার কোন তুলনা হয়না। তার তুলনা সে নিজেই। দেশীয় সিনেমার গানের মুকুটহীন সম্রাট বলা হয় তাকে। জীবনের শুরু থেকেই সিনেমার গানের অনিবার্য সুকন্ঠা হয়ে উঠেছিলেন তিনি। তারই স্বীকৃতিস্বরূপ ৮ বার পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। বিশিষ্ট এ শিল্পী গত কয়েক বছর ধরেই গানের সংখ্যা কমিয়ে দিয়েছেন।

বিশেষ করে সিনেমার গানে আগের মতো করে আর পাওয়া যায় না তাকে। কারণটা হলো তার পছন্দের গান এখন আর লেখা হয় না। হলেও দু একটা যা তিনি সচারচর গেয়ে থাকেন। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এমন হওয়াটাই স্বাভাবিক। কারণ প্রত্যেকের সময় থাকে। কিন্তু তার সময়টা একটু বেশিই ছিল। কত শত জনপ্রিয় গানের কন্ঠ তার দেওয়া বাংলার ইতিহাসে তিনি চিরদিন অমর হয়ে থাকবেন। তবে ইদানিং কিছু সিনেমার কাজ করছেন তিনি। কয়েকটি ছবির নতুন গানে কণ্ঠ দিয়েছেন। আবার কিছু মিশ্র এ্যালবামের কাজ করেছেন। তিনি এখন অপেক্ষায় আছেন একজন প্রিয় মানুষের রেখে যাওয়া চারটি গানের কথা নিয়ে। তিনি হলেন সৈয়দ শামসুল হক। জীবনের প্রথম তার গান গেয়ে এন্ড্রু কিশোর জাতীয় পুরুষ্কার পেয়েছেন। ছবিটি ছিল বড় ভালো লোক ছিলো। গানটি হায়রে মানুষ রঙ্গীন ফানুশ। এন্ড্রু কিশোর বলেন আমি জীবনে অনেক কাজ করেছি আর করতে হবে এটা মনে করিনা। তবে হ্যা মরে যাবার আগে আমার শেষ ইচ্ছা ও স্বপ্ন সৈয়দ শামসুল হক এর রেখে যাওয়া চার গান। মৃত্যুর আগে হক ভাই আমার জন্য এই চারটি গান রেখে গেছেন। সেগুলোর সুর করছেন আমার গুরু আলম খান। এই চারটি গান করতে পারলে আমার সঙ্গীত জীবন পরিপূর্ণতা পাবে। এটি আামার জীবের উল্লেখ করার মতোই একটি বিষয় হবে বলে আমি মনে করি। সঙ্গীতাঙ্গন এর পক্ষ থেকে কিশোরের জন্য আর্শিবাদ তার শেষ ইচ্ছাটা পূরণ হক। শুভকামনা। – মোঃ মোশারফ হোসেন মুন্না

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: