২০১৭ সালের দম্পতী বিচ্ছেদ…

২০১৭ সালের আলোচিত কিছু দম্পতী নিয়ে আলোচনায় এসেছে দেশের গনমাধ্যেম। তাদের কিছু কথা তুলে ধরলাম।

তাহসান ও মিথিলাঃ
সুখী দম্পতি, সফল তারকা জুটি তাহসান-মিথিলার সংসার ভেঙে যায় বিদায়ী ২০১৭ সালের মে মাসে। তাহসান ও মিথিলা দুজনই ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। ভালো লাগা থেকে ভালোবাসা, প্রেম। ২০০৬ সালে বসেন বিয়ের পিঁড়িতে। দাম্পত্য জীবনের টানাপড়েনের কারণে দীর্ঘ ১১ বছরের সংসারের ইতি টানতে বাধ্য হন এই তারকা জুটি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে শুরু করে সারা দেশে ব্যাপক আলোচিত হয় এই জুটির ভাঙনের খবর। ভক্তের হৃদয়ও ভেঙে যায় তাদের বিচ্ছেদে। বিচ্ছেদ নিয়ে তাহসান তার ভক্তদের উদ্দেশে বলেন, নিজেদের মধ্যকার দ্বন্দ্ব বা মতবিরোধ নিরসনের চেষ্টার পর আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, সামাজিক চাপে একটা সম্পর্ক ধরে রাখার চেয়ে আমাদের আলাদা হয়ে যাওয়াই মঙ্গলজনক। আমরা বুঝতে পেরেছি, এটা আপনাদের খুব খারাপ লাগবে। সে জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি। আমরা সব সময় নিজেদের সম্পর্ক সম্মান ও মর্যাদার সঙ্গে বজায় রেখেছিলাম, ভবিষ্যতেও তাই থাকবে। আমরা আশা করি, আপনারা আমাদের পাশে থাকবেন।

হাবিব ও মডেল তানজিন তিশাঃ
জনপ্রিয় সঙ্গীত পরিচালক ও গায়ক হাবিব ওয়াহিদ। এ বছর ‘ঘুম’ শিরোনামের গান উপহার দিয়ে শ্রোতাদের সঙ্গে ছিলেন। গানের জন্য যতটা না আলোচিত হয়েছেন এ গায়ক তার চেয়ে বেশি আলোচিত ছিলেন স্ত্রী রেহানকে ডিভোর্স ও মডেল অভিনেত্রী তানজিন তিশার সঙ্গে প্রেম নিয়ে। তারা প্রেমের কথা অস্বীকার করে এলেও তানজিন তিশাকে নিয়ে হাবিব বাইকে চড়ে ঘুরে বেড়ানোর ছবিটি ফেসবুকে পোস্ট করার পরই প্রেমের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। ২০১১ সালের ১২ অক্টোবর চট্টগ্রামের মেয়ে রেহান চৌধুরীর সঙ্গে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় হাবিব ওয়াহিদের। পাঁচ বছরের দাম্পত্য জীবনে ২০১২ সালের ২৪ ডিসেম্বর তাদের ঘর আলোকিত করে আসে একমাত্র সন্তান আলিম। এ বছরের ১৯ জানুয়ারি তাদের আনুষ্ঠানিক বিচ্ছেদ হয়ে যায়।

জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী মিলা ও পারভেজ সানজারিঃ
১০ বছরের প্রেম। অতঃপর এ বছরের ১২মে বৈমানিক পারভেজ সানজারিকে বিয়ে করেন সঙ্গীতশিল্পী মিলা। টিকল না তাদের প্রেমের সংসার। বিয়ের চার মাস পরই বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটান এই পপ তারকা। বিয়ের কারণে দীর্ঘদিন ধরে সঙ্গীত থেকে দূরেই ছিলেন এই গায়িকা। গান নিয়ে আলোচনায় না থাকলেও বিচ্ছেদের কারণে মিলা এ বছর খবরের শিরোনামে আসেন। মিলা বলেন, ১০ বছর সম্পর্কের পর আমরা বিয়ে করি। কিন্তু বিয়ের মাত্র ১৩ দিনের মাথায় জানতে পারি তার আরও কয়েকজন নারীর সঙ্গে সম্পর্ক আছে। বুঝতে পারি, সে আমাকে ঠকাচ্ছে। যে লোক এত দীর্ঘ সম্পর্কের পরও আমার সঙ্গে এমন আচরণ করতে পারে, তার সঙ্গে আমি থাকতে পারব না। পারভেজের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন মিলা। ৫ অক্টোবর রাতে মিলার স্বামী পারভেজ সানজারিকে গ্রেপ্তার করে উত্তরা পশ্চিম থানার পুলিশ। ২৭ অক্টোবর জামিন পান পারভেজ সানজারি। – মোঃ মোশারফ হোসেন মুন্না

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: