আনন্দে মাতোয়ারা বঙ্গবন্ধু সম্মেলন কেন্দ্র…

৭ম বারের মত বাংলা নববর্ষকে বরণ করে নিতে চ্যানেল আই ও সুরের ধারা বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজন করেন বর্ণিল মঞ্চে নানান রঙের বাংলা বর্ষবরণের অনুষ্ঠান সানসিল্ক হাজারও কণ্ঠে বর্ষবরণ ১৪২৫।
প্রভাতের প্রথম প্রহরে ওঠো ওঠোরে বিফলে প্রভাতও গড়িয়ে যায় যে…গানটি রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার নেতৃত্বে পরিবেশনার মধ্য দিয়ে শুরু হয় বর্ষবরণের মূল অনুষ্ঠান। তারপর দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ছুটে আসা হাজারও শিল্পীর কণ্ঠে শুরু হয় বর্ষবরণের গান। এবং মুখরিত হয় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতীক সম্মেলন কেন্দ্র। বিমহিত হয় হাজারো দর্শক। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্যে চ্যানেল আই এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর বলেন, এতো বড় মঞ্চ, এতোগুলো শিল্পী, আমার বিশ্বাস পৃথিবীর কোথাও বর্ষকে বরণ করে নিতে এমন আয়োজন হয় না। গত সাত বছর ধরে চ্যানেল আই ও সুরের ধারা এভাবেই নতুন বছরকে স্বাগত জানিয়ে আসছে। সঙ্গে ছিলো সাধারণ মানুষের ভালোবাসা।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন চ্যানেল আই এর পরিচালক ও বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা জানাতে আসেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ খ ম মোজাম্মেল হকসহ দেশের বিশিষ্টজনেরা। বর্ষবরণ এই অনুষ্ঠানে এসেছিলেন বাংলাদেশের বিভিন্ন মিশনের কুটনীতিকরাও। অনুষ্ঠানে আরো সঙ্গীত পরিবেশন করেন মো: খুরশীদ আলম, রথীন্দ্রনাথ রায়, রফিকুল আলম, বাপ্পা মজুমদার, এলআরবি আইয়ূব বাচ্চু, চ্যানেল আই সেরাকণ্ঠ, ক্ষুদে গানরাজ ও বাংলার গানের শিল্পীরা। নৃত্য পরিবেশন করেন চ্যানেল আই সেরা নাচিয়ের শিল্পীরা। পরিবেশিত হয় একদল তরুণীর অংশগ্রহণে ফ্যাশন শো ও মঙ্গল শোভা যাত্রার সঙ্গে নাচ। মেলার স্টলগুলো সাজানো ছিল বাঙালির হাজার বছরের বিভিন্ন ঐতিহ্যের উপাদান, বৈশাখের হরেক রকম পণ্য সামগ্রী দিয়ে। স্টলগুলোতে আরো শোভা পায় পিঠা-পুলি, মাটির তৈরি তৈজসপত্র, বেত, কাঁথা, পিতল, পাট-পাটজাত দ্রব্যের জিনিসপত্রসহ রকমারি ও ঐতিহ্যসমৃদ্ধ নানান পণ্য সামগ্রী। বর্ষবরণ উৎসব দুপুর ১২টা পর্যন্ত চ্যানেল আই সরাসরি সম্প্রচার করে। উপস্থাপনা করেছেন ফারজানা ব্রাউনিয়া, মৌসুমী, অপু মাহফুজ ও সাথী। পরিচালনা করেছেন আমীরুল ইসলাম ও শহিদুল আলম সাচ্চু।

আগের দিন ১৩ই এপ্রিল সন্ধ্যায় একই স্থানে অনুষ্ঠিত হয় চৈত্র সংক্রান্তি উৎসব বা বর্ষবিদায়। সুর্যাস্তের সঙ্গে সঙ্গে সম্মিলিত কণ্ঠে সুরের ধারার শিল্পীরা পরিবেশন করেন তা তা থৈ থৈ… এবং ওরে ওরে ওরে আমার মন মেতেছে…ইত্যাদি গান। এ সময় অতিথি মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, চ্যানেল আই-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, ইনসেপটা ফার্মাসিউটিক্যালস-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল মুক্তাদির, নারী উদ্যোগক্তা কনা রেজাসহ দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। পরে রেজওয়ানা চৌধুরী বন্য সহশিল্পীদের নিয়ে পরিবেশন করেন তুমি যে সুরের আগুন লাগিয়ে দিলে মোর প্রাণে…। মধ্যরাত পর্যন্ত চলমান অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করেছে চ্যানেল আই। রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার স্বাগত বক্তব্য শেষে শিল্পীরা মধ্যরাত পর্যন্ত পরিবেশন করে সম্মেলক সঙ্গীত, একক সঙ্গীত, আবৃত্তি, নৃত্য, নৃত্যনাট্য, বিশিষ্টজনদের সাক্ষাৎকার ইত্যাদি। এভাবেই সমাপ্তি ঘঠে আনন্দের এই বৈশাখী উৎসবের। আসছে বছরের বৈশাখীর আগাম শুভেচ্ছা ও শুভ কামনায় সঙ্গীতাঙ্গন। – মোশারফ হোসেন মুন্না

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: