স্ব-রূপে বামবা…

অটিজম বিষয়ে মানুষের সচেতনতা বাড়াতে আবারো দেশের সব জনপ্রিয় ব্যান্ডদল নিয়ে কনসার্ট করলেন বাংলাদেশ মিউজিক্যাল ব্যান্ডস অ্যাসোসিয়েশন (বামবা)। গত ২৮সেপ্টেম্বর শুক্রবার বাংলাদেশ আর্মি স্টেডিয়ামে আয়োজিত এই কনসার্টে দৃক, মাইলস, ওয়ারফেজ, ফিডব্যাক, পাওয়ার সার্জ, সোলস, শিরোনামহীন, দলছুট, ম্যাকসুদ ও ঢাকা, নেমেসিস, আর্বোভাইরাস, ভাইকিংসদের মত উপস্থিত ছিলেন দেশের জনপ্রিয় সব ব্যান্ডদল।

সচেতনমুলক এই কনসার্ট বামবা’র সাথে যৌথভাবে আয়োজন করে পিএফডিএ-ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার (পিএফডিএ-ভিটিসি), সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় ও স্ক্যাইট্র্যাকার লিমিটেড। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এবং পরে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহন বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। হাজারো দর্শকদের আগমনে দুপুর থেকে বিভিন্ন ব্যান্ডদের পারফর্মেন্স চলতে থাকে গভীর রাত পর্যন্ত। শুধু দর্শকদের বিনোদনের জন্য নয়, অটিজম বিষয়ে সকলকে সচেতন করতে বিভিন্ন আয়োজনের মধ্য দিয়ে শেষ হয় বামবা’র এই সামাজিক সমস্যা নিরসনমুলক কনসার্ট।

প্রথমেই ব্যান্ডদল দৃক-এর পরিবেশনা এরপর ফিডব্যাক তাদের সব জনপ্রিয় গান দিয়ে শুরু হয় কনসার্ট। এবং বিশেষ শিশু সুস্মিকে নিয়ে গাইলেন ‘কেন খুলেছ তোমার জানালা’ গানটি। বিকেল পেরিয়ে সন্ধ্যা নামতেই মঞ্চে ব্যান্ড পাওয়ারসার্জ। তখন স্টেডিয়ামে হাজারো মানুষের ঢল, শুরু হয় উম্মাদনা। গানের অকুল দরিয়ার জোয়ারে ভাসতে থাকে গণ মানুষের চিৎকার, আনন্দ আর উল্লাস। তবে শুধু গান নয় মাঠের তিনটি এলইডি পর্দায় চলছিল বাংলাদেশ ভারত এশিয়া কাপ ফাইনাল ম্যাচ। তখন ব্যাট করছে বাংলাদেশ। দর্শকদের গান আর চার-ছয়ের আনন্দ উল্লাসে ভেসে যায় পুরো স্টোডিয়াম। এরপরে আসে ব্যান্ডদল দলছুট। পরিবেশন করে দিন বাড়ী যায়, চাঁদের শহরের মত জনপ্রিয় গানগুলো। কয়েকটি গানের পরে মঞ্চে আমন্ত্রণ জানায় বিশেষ শিশু শুপ্ত আর সায়মানকে। এক সাথে সবাই গাইলেন ‘তুমি আমার বায়ান্ন তাস’ জনপ্রিয় এই গানটি। পরে এই শিশুদের একটি দল নিয়ে শাহ আবদুল করিমের বিখ্যাত গান ‘গাড়ি চলে না’ গানটি পরিবেশন করে। এরপরে ব্যান্ডদল ভাইকিংস এসে ‘ভালবাসি যারে’ গানটি গেয়ে দর্শকদের মন মুগ্ধ করে তোলে। অনেক দিন পরে বামবার এই কনসার্ট বেশ উপভোগ করে দর্শক শ্রোতারা। এরপরে ব্যান্ডদল শিরোনামহীন গাইলেন তাদের গান ‘হাসিমুখ’৷ মাতাল হাওয়ার পরিবেশে উম্মাদনায় ভাসছে তখন মানুষের মন। তবে ব্যান্ডদল নেমেসিসের ‘জনজোয়ারে’ গানটিতে মুগ্ধতায় ভাসে কনাসার্টের আয়োজন। তবে গানের ফাঁকে ফাঁকেই ছিল সচেতনমুলক বিভিন্ন বার্তা। এরপরে আন্তর্জাতির ব্যান্ডদল মাইলস পরিবেশন করে তাদের বিখ্যাত গানগুলো। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল ‘ধ্বিকি ধ্বিকি আগুন জ্বলে’ ও ‘ফিরিয়ে দাও’ গানটি। এরপরের ব্যান্ড ওয়ারফেজ এর ‘বসে আছি একা’ সহ বেশ কিছু মনমুগ্ধকর গান পরিবেশন করে দর্শকদের মাতিয়ে তোলে। এরপরে ধারাবাহিক ভাবে অনান্য ব্যান্ডদল তাদের জনপ্রিয় গানগুলো পরিবেশন করে।

বাংলাদেশ মিউজিক্যাল ব্যান্ডস অ্যাসোসিয়েশন বামবা’র শুরু থেকেই বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা নিরসন, দুর্যোগকবলিত মানুষকে সহযোগিতাসহ নানা সামাজিক কল্যাণমূলক কাজ করে আসছে, অটিজম বিষয়ে সকলকে অবহিত করাই ছিল এবারের আয়োজন। ১৯৮৭ সালে বন্যার্তদের সাহায্যের উদ্দেশ্যে কনসার্টের মধ্য দিয়ে যাত্রা শুরু হয় বামবার এই ধরনের আয়োজন। তবে বহুদিন পরে আবার এই কনসার্টের মধ্য দিয়ে তাদের পরিচয় ফুটিয়ে তুলেছে নতুন করে। -নোমান ওয়াহিদ

ছবি – ইরফান খান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: