Press "Enter" to skip to content

বৈশাখের গানে কুমার বিশ্বজিৎ…

নতুন বছরের উৎসবের সঙ্গে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর কৃষ্টি ও সংস্কৃতির নিবিড় যোগাযোগ। গ্রামে মানুষ ভোরে ঘুম থেকে ওঠে, নতুন জামাকাপড় পরে এবং আত্মীয়স্বজন ও বন্ধু-বান্ধবের বাড়িতে বেড়াতে যায়। বাড়িঘর পরিষ্কার করা হয় এবং মোটামুটি সুন্দর করে সাজানো হয়। বিশেষ খাবারের ব্যবস্থাও থাকে। কয়েকটি গ্রামের মিলিত এলাকায়, কোন খোলা মাঠে আয়োজন করা হয় বৈশাখী মেলার। মেলাতে থাকে নানা রকম কুটির শিল্পজাত সামগ্রীর বিপণন, থাকে নানারকম পিঠা পুলির আয়োজন। অনেক স্থানে ইলিশ মাছ দিয়ে পান্তা ভাত খাওয়ার ব্যবস্থা থাকে। এই দিনের একটি পুরনো সংস্কৃতি হলো গ্রামীণ ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন। এর মধ্যে নৌকা বাইচ, লাঠি খেলা কিংবা কুস্তি একসময় প্রচলিত ছিল। তবে দিনের পরিবর্তনের সাথে সেই বৈশাখ এখন আগের থেকে পরিবর্তন হয়ে গেছে। এখন গানের সাথে জমে উঠে বৈশাখী মেলার নতুন আনন্দ। সেই অপেক্ষায় অপেক্ষমান থেকে শিল্পীরা তৈরি করতে থাকে তাদের কন্ঠের নতুন নতুন বৈশাখী গান। এবারের বৈশাখকে ঘিরে তৈরি হয়েছে কুমার বিশ্বজিৎ এর নতুন গান।

পহেলা বৈশাখে নতুন গান নিয়ে আসছেন জনপ্রিয় তারকা কুমার বিশ্বজিৎ। আর এই গানে অন্যরকম এক বিশ্বজিৎকে খুঁজে পাবেন সবাই। বিপ্লব সাহার কথায় গানটির সুর ও সঙ্গীতায়োজন করেছেন উজ্জ্বল সিনহা। তারকাবহুল উপস্থিতিতে বর্ণাঢ্য আয়োজনে গানটির মিউজিক ভিডিও প্রকাশ হতে যাচ্ছে শিগগিরই। ‘নতুন দিনের নতুন রঙে সবার মন দুলে যায়, চারদিকে রঙের খেলা, গানে ছন্দ খুঁজে পায়’-শিরোনামের এই গানটি মাস দেড়েক আগে রেকর্ড হয়েছে। দেশীয় ঐতিহ্য ও উৎসবের গান এটি। গানের কথা অনেক বর্ণিল। বাংলাদেশের ষড়ঋতুর কথা বলা হয়েছে। বৈশাখ ছাড়াও যেকোনো উৎসবে গানটি ব্যবহার করা যাবে। মোটকথা গানটির সবকিছুই ভালো। গানটিতে কণ্ঠ দেয়ার পাশাপাশি ভিডিওতেও মডেল হিসেবে দেখা যাবে কুমার বিশ্বজিৎকে। সাজ-পোশাকেও থাকবে ভিন্নমাত্রা। দেশীয় ঐতিহ্যের ফ্যাশন হাউজ বিশ্বরঙের থিম সং হিসেবে তাদের ব্যানারে প্রকাশিতব্য গানটির ভিডিওতে কুমার বিশ্বজিৎ ছাড়াও পারফর্ম করেছেন ওয়াহিদা মল্লিক জলি, নরেশ ভূঁইয়া, মনোজ কুমার, নাবিলা, মডেল আসিফ খান, শাহেদ ফারহানসহ এক ঝাঁক র‌্যাম্প মডেল। গানটির প্রযোজক ও গীতিকার বিপ্লব সাহা বলেন, গানের কথায় বাংলার সুর-নদী, ফুল-লতা-পাতা প্রকৃতির পাশাপাশি বাংলার তাঁত-তাঁতি, রঙ, সুতা এ শব্দ গুলোর কথা উল্লেখ করা হয়েছে। কেননা তাঁতের কথা, তাঁতির কথা, রঙ, সুতো, বুননের কথা আমাদের গানগুলোতে পাওয়া যায় না। গানটা এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যাতে বাংলার যেকোনো উৎসবে গানটি শ্রোতাদের কানে বাজে। এদিকে, কুমার বিশ্বজিৎ জানান, পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে এ গানটি ছাড়াও সিলেটের টেকের হাট অঞ্চলের বাউল সেকেন্ড শাহর একটি গান কণ্ঠে তুলছেন। এ ছাড়াও প্রকাশের অপেক্ষায় আছে তার বেশ কিছু নতুন গান। পাশাপাশি নিজের জনপ্রিয় কিছু গানের রিমিক্সও করছেন তিনি। সম্প্রতি কণ্ঠ দিয়েছেন আহমেদ হুমায়ুনের সঙ্গীতায়োজনে নতুন একটি চলচ্চিত্রের গানেও। শিল্পীর এর জন্য শুভ কামনা রইলো। – মোঃ মোশারফ হোসেন মুন্না

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *