Press "Enter" to skip to content

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত কন্ঠ শিল্পী বেলাল খান এর পথচলা…

সঙ্গীতাঙ্গনের গর্ব বর্তমান সময়ের ব্যস্ততম তারুণ্যময় কন্ঠশিল্পী বেলাল খান, সঙ্গীতপ্রেমী সকলের প্রাণের চাওয়া ছুঁয়ে দিতে যার প্রতি ভোর প্রতি রাত্রি উৎসুক মন তিনি সকলের চেনা মুখ বেলাল খান। মায়া জড়ানো আবেগ স্পর্শকারী তরুণ শিল্পী বেলাল খানের জন্ম টাঙ্গাইল জেলার সখীপুরের নলুয়া গ্রামে। সোনার দেশের সোনার ছেলের বাবা মোঃ লুৎফর রহমান খান একজন সরল প্রাণের মাটির মানুষ। রত্নগর্ভা মা বেদেনা রহমান। ছেলেবেলা থেকেই প্রকৃতি প্রেমী বেলাল খান ছিলেন উন্নত মনের অধিকারী। সুরে সুরে পাঠ প্রদান ছিল কিশোর বেলালের বৈশিষ্ট্য, কালক্রমে সে সব স্বভাব ও আচরণ সুরকার ও কন্ঠ শিল্পীরূপে খ্যাতি অর্জনের হাতিয়ার হিসেবে সঙ্গীতাঙ্গনের পথ সহজ সরল করে দেয়। উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা শেষ করে ২০০১ ইং সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি ভাষাতত্ত্ব বিভাগে লেখা পড়া শুরু করেন। পরবর্তী সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনার্স ও মাস্টার্স সনদ অর্জন করেন। হাটি হাটি পা পা করে এগিয়ে চলেন সুর ও কন্ঠ সাধনায় উদার মনা কন্ঠশিল্পী বেলাল খান। এ্যালবামের জগতে প্রবেশ করেন ‘আলপনা’ এ্যালবাম নিয়ে ভাবানুরাগী কন্ঠশিল্পী বেলাল খান, মিডিয়া জগতে প্রথম যাত্রা করেন একুশে টেলিভিশনের হাত ধরে। ২০০৬ ইং সালে দরদী মনা বেলাল খানের সুর করা গানে কন্ঠ দেন সুপারস্টার মনির খান, ‘মন কান্দেরে’ এ্যালবামে। ‘মেঘের কাজল’ এ্যালবামে সুমিষ্ট কোকিল কন্ঠি শিল্পী বেবি নাজনীন, বেলাল খানের সুর করা দুটি গানে কন্ঠ দেন। তপস্যা ও মননের মাধ্যমে জায়গা করে নেন চলচ্চিত্র জগতে। দ্বৈত কন্ঠে চলচ্চিত্রে গান করেন “পাগল তোর জন্যে” শিরোনামে বেলাল খান ও ন্যান্সি। সাধনা ও একাগ্রতার ফলস্বরূপ ২০১৪ ইং সালে শ্রেষ্ঠ সংগীত শিল্পী হিসেবে বাচসাস পুরষ্কার লাভ করেন তরুণ কন্ঠ শিল্পী বেলাল খান ‘অল্প অল্প প্রেমের গল্প’ চলচ্চিত্রে। এছাড়া সিম্ফনি চ্যানেল আই, সিজে এফবি সহ অসংখ্য পুরষ্কার ও খ্যাতি অর্জন করেছেন তিনি বাংলার শিল্প ও সংস্কৃতির অঙ্গনে। প্রিয় জন্মভূমি বাংলা সহ বিভিন্ন দেশে তিনি কনসার্টে ঝড় তুলেছেন শ্রোতাদের মনোরঞ্জনে। ভ্রমণ করেন আমেরিকা, দুবাই, ইতালি, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও ভারত। কন্ঠ সাধক বেলাল খান প্রিয় মুখ বলতে ধ্যানে ও জ্ঞানে বিশ্বাস করেন জন্মদাতা পিতা ও মাতা। হৃদয়ের বন্ধনে আবদ্ধ প্রিয়তমা সহধর্মিণী মলি খানকে প্রিয় বন্ধুর স্থানে আসীন করেন। অন্তর্দৃষ্টি থেকে বেলাল খান অনুভব করেন সংগীতে তার প্রেরণা ও শক্তির উৎস ভক্ত মহল, স্বপ্ন দেখার নীল নকশা আরও জোড়ালো করে এঁকে যায় প্রাণপ্রিয় সন্তান নাওয়াফ খান ও তাবিহার পবিত্র মুখ। সংগীতানুরাগী বেলাল খান শ্রোতাদের উৎসাহ ও প্রেরণা নিয়ে শেষ নিঃশ্বাস অবধি সংগীত চর্চা করে যেতে চান। তরুণদের উদ্দেশ্যে তার অভিনন্দন বার্তা, তুমি এক পা সামনে এগোও আমি আমার দিক থেকে দু’কদম এগিয়ে নিয়ে যাব, ধৈর্য আর নিষ্ঠার সাথে এগিয়ে গেলে সময় তার অবস্থান তৈরি করতে পথ খুলে দেবে। প্রিয় ব্যক্তিত্ব আব্দুস সবুর খান ও প্রিয় মিউজিসিয়ান এ আর রহমানের প্রতি তিনি গভীর শ্রদ্ধাশীল ও হীতাকাঙ্ক্ষী। অবসরে সুরের সাধনায় মগ্ন হয় সুরস্রষ্টা ও কন্ঠ শিল্পী বেলাল খান, ভালবাসেন বিভিন্ন গান শুনতে, বাপ্পা মজুমদারের যাদুকরী কণ্ঠের স্রোতে নিজেকে হারিয়ে ফেলেন। সেই সাথে মনে স্থান করে নিয়েছে মাইলস, নগর বাউল, নেমেসিস, চিরকুট। দর্শক মনে ঝড় তোলা এ বছরের আয়োজনে উল্লেখযোগ্য গানসমূহের মধ্যে রয়েছে – বেঁচে থাকার জন্য, মনের আলো, তুমি আমার নও, ঝড় ইত্যাদি। এ সপ্তাহের গান শুদ্ধতা লেভেলে প্রকাশিত ‘তোমাকে প্রয়োজন’ দ্বিতীয়বারের মত কন্ঠ দিলেন গানে প্রাণরস অনুসন্ধানী বেলাল খান, কন্ঠ ও সুরের মূর্ছনায় নিজেকে হারিয়ে না ফেলা অবধি বেলাল খান অনুসন্ধান করে চলেন গানের ভেতরে প্রবেশের পথ। শুদ্ধ সংগীত সাধনায় প্রতি নিয়ত নিজেকে আচ্ছন্ন রাখতে চান সংগীত পিয়াসি শিল্পী বেলাল খান। বৈশাখী আয়োজনে থাকছে ‘আবার বাজি’ । হৃদয়গ্রাহী অনুভূতি ছুঁয়ে এভাবেই যুগ যুগ বেঁচে থাক প্রকৃত সংগীত শিল্পী বেলাল খান। – সালমা আক্তার

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *