Press "Enter" to skip to content

মা দিবসে মায়ের প্রতি ভালোবাসা…

মোশারফ হোসেন মুন্না।
মায়ের একধার দুধের দাম
কাটিয়া গায়ের চাম
পাপস বানাইলেও ঋণের সুধ হবেনা
এমন দরদী ভবে কেউ হবেনা আমার মা গো!

মা! ছোট একটি শব্দ, তবে এর মহত্ব কত বিশাল। হাজারো কষ্টের মাঝে মুখ থেকে ডাক দিলে মা, হৃদয় শিতল হয়ে যায়। জীবনের যত দুঃখ কষ্ট সব চলে যায়। মায়ের মুখের এক চিলতে হাসি যেন মহা রোগের ঔষধ। ছোট থেকে মায়ের অতুলনীয় সেবা আর ভালোবাসায় বড় হয়েছি আমরা। জীবনের খানিকটা সময়ে মা জড়িয়ে আছে হৃদস্পন্দন এর সাথে। অনাবিল ভালোবাসা আর মমতায় ভরে আছে জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে। সেই মাকে নিয়ে ২০১৯ এর মা দিবস পালিতো হলো নানা ভাবে। গানে গানে কেউ স্মরণ করেছেন মা’কে। কবিতার চরণে কেউ মায়ের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করছেন। সঙ্গীতাঙ্গন এর শিল্পীরা ও তাদের মায়ের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করেছেন। জনপ্রিয় শিল্পী আঁখি আলমগীর বলেন, আমি খুব ভাগ্যবান একজন সন্তান। আমার বাবার কারণে আমাদের বাসায় অনেক অনেক অভিনেতা অভিনেত্রীরা বাসায় আসতেন। আবার আমার মায়ের কারণে অনেক কবি সাহিত্যিকের আনাগোনা ছিলো বাসায়। আমার সঙ্গীত জীবনের পথচলায় আমার বাবা-মা সবসময়ই আমার পাশে ছিলেন এবং এখনো আছেন। আমার মায়ের লেখা অনেক গান আছে। মায়ের লেখা গান নিয়ে আমার গাওয়া এবং বিশিষ্ট শিল্পী যারা গেয়েছেন সেই হিট গানগুলো নিয়ে একটি এ্যালবাম করার পরিকল্পনা করছি। এটা আমার মায়ের প্রতি, মায়ের লেখা গানের প্রতি ভালোলাগা ভালোবাসা থেকেই করবো। কারণ এখন পূর্ণাঙ্গ এ্যালবাম কেউ শুনে না। কিন্তু আমার মায়ের
গানগুলো সংরক্ষণ করার জন্যই আমি তা করবো। আমার মায়ের জন্য সবাই দোয়া করবেন, মা যেন সবসময় ভালো থাকেন সুস্থ থাকেন। কারণ মায়ের কারণেই আজকের এই সুন্দর পৃথিবী দেখা। মা যে কতটা আগলে রেখে আদর ভালোবাসা দিয়ে আমাকে বড় করেছেন তা নিজের সন্তানের প্রতি সেই ভালোবাসার অনুভব থেকে উপলদ্ধি করি প্রতি মুহুর্তে। মায়ের প্রতি ভালোবাসা সব সন্তানের আছে। সবাই সবার মা’কে ভালোবাসে।

শিল্লী জিনিয়া জাফরিন লুইপা মায়ের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, আমার আম্মু বুঝেছিলেন বিধায় আম্মু আমাকে গানের সাথে ছোটবেলায় সম্পৃক্ত করেছিলেন। আম্মু বুঝতে পেরেছিলেন আমাকে দিয়ে গানটাই ভালো ভাবে করিয়ে নেয়া সম্ভব হবে। তাই আম্মুর শতভাগ চেষ্টায় আমি নিজেকে আজকের একজন সঙ্গীতশিল্পীতে পরিণত করতে পেরেছি। মহান আল্লাহর কাছে অসীম কৃতজ্ঞতা যে তিনি আমাকে এমন একজন মায়ের গর্ভে জন্ম দিয়েছেন। আম্মুর সংস্কৃতির নানান ক্ষেত্র সম্পর্কেই সবসময় আগ্রহ প্রকাশ করেছেন এবং জানেনও বটে। তবে তিনি আমার মধ্যে সঙ্গীতের প্রতি অনুরাগটা বেশি দেখেছিলেন বলেই আমাকে সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে গড়ে তুলেছেন। আমি মাকে জীবনে একবারই অনেক বড় কষ্ট দিয়েছি। বুঝতে পেরেছিলাম যে কষ্ট দিয়েছি। কিন্তু এটাও সত্যি পরবর্তীতে তা সবার জন্যই মঙ্গল হয়েছে। এখন আমরা পরিবারের সবাই বেশ ভালো আছি, আলহামদুলিল্লাহ। আর মা দিবসে আম্মুর প্রতি অনকে অনেক ভালোবাসা। আমার আম্মু পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ আম্মু।

শিল্পী শুভ্রদেব বলেন,আমার নিজের লেখা একটি গানের লাইন ‘আবার যদি জন্ম নিতে হয়, এই দেশেতেই এই মায়েরি কোলে আমার জন্ম যেন হয়।’ তোমার ভালোবাসা, তোমার স্নেহ, জন্ম থেকে জন্মান্তরের শ্রেষ্ঠ সম্পদ। যার কোনো তুলনাই হয় না গো মা।’ আজ বিশ্ব মা দিবস উপলক্ষে মাকে নিয়ে কথাগুলো সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে লিখেছেন জনপ্রিয় গায়ক শুভ্র দেব। মাকে ভীষণ ভালোবাসেন বলে জানান সঙ্গীতশিল্পী পুতুল। তিনি বলেন, মা আমার জীবনে কী তা মা খুব ভালো করে জানেন। আমার লেখা গান কবিতায় সবচেয়ে বেশি যে মানুষটা ঘুরে ফিরে আসেন তিনি আমার মা। আমি বহিঃপ্রকাশে বিশ্বাসী কারণ গোপন ভালোবাসা অনুভব করার আগেই যদি অভিমান তাকে গ্রাস করে বসে এই ভয়ে বাকির খাতায় কিছু রাখি না, জানিয়ে দেই হৃদয় উজাড় করা ভালোবাসার কথা। নগদ বুঝিয়ে দেই ভালোবাসার দেনা-পাওনা। প্রতিদিন জানাই। কারণ মায়ের প্রতি ভালোবাসাতো কোনো বিশেষ দিনের জন্য হতেই পারে না। তাই আমি প্রতি মুহূর্তে কৃতজ্ঞ থাকি আমাকে জন্ম দেওয়ার জন্য। সঙ্গীতশিল্পী কর্ণিয়া বলেন, সকল মাকে শ্রদ্ধা জানাই। আসলে মায়ের বিকল্প শুধুই মা। মাকে খুব ভালোবাসি।
অন্যদিকে, সঙ্গীতশিল্পী ঐশী বলেন, মা মানুষটি প্রত্যেকটি মানুষের কাছে সবচেয়ে ভালোবাসার, তেমনিভাবে আমার কাছেও। কিন্তু আমি জানি, আমার মা হলেন সবার থেকে আলাদা ‘মা’। এমন মা আর কারো নেই। আম্মু, তোমাকে ভালোবাসার দিন তো প্রতিদিন। কিন্তু বলাটা কেন জানি হয় না। আজকের মা দিবস হলো তোমার প্রতি ভালোবাসাটাকে একটু সাহস করে কিছু শব্দে তোমাকে বলা। এই আর কি। তুমি তো আমার কাছে কোনো শব্দে প্রকাশ্য ব্যক্তি নও। তুমি হলে অদৃশ্য এক অদ্ভুত শক্তি, যা কি না যেকোনো কঠিন সময়কে সহজ ও আনন্দের করে। আর আনন্দের সময়কে করে তুলে শ্রেষ্ঠ। মন যখন অনেক ভারী হয়ে যায়, তখন তোমাকে একটু জড়িয়ে ধরলেই হয়। কারণ আমার মনের ভারগুলো তো তখন তুমিই নিয়ে যাও। নিঃস্বার্থ ভাবে নিজের জীবনটা বিলিয়ে দিয়েছ আমার মাঝে। আমার যা কিছু সব কিছুই তোমার, আর আব্বুরও। আর আমার দুই ভাই। কারণ আমার জীবনটা তো আমার একার নয়, আমরা পাঁচজন মিলেই এক জীবন। আজকে তাদের মনটা একটু জেগে উঠুক, যারা মা থেকেও মাকে পারছেন না ভালোবাসতে। বোকা মানুষ, এই মা-ই আপনার জীবনের এক মাত্র বেঁচে থাকার শক্তি। সময় থাকতে বুঝে নিন। আম্মু, আমায় মিশে থেকো সবসময়। ভালোবাসি।

এ জীবন সংসারে সবার মা ভালো থাকুক। মায়ের স্নেহ সবার কাছে থেকে যাক যুগ যুগ ধরে। জীবনের সব জায়গায় কারো কারো মায়ের আচলের পরশ আছে। যাদের মা পৃথিবীটা থেকে বিদায় হয়ে গেছে। যাদের মাথায় মায়ের হাত বুলানোর সুযোগ শেষ হয়ে গেছে আল্লাহ যেনো সে সব মাকে জান্নাতবাসী করেন। যাদের মা এখনো বেচে আছেন তাদেরকে যেনো যথা সম্ভব সম্মান করতে পারেন সেই শুভ কামনায় সঙ্গীতাঙ্গন।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *