Press "Enter" to skip to content

দেশের গানে এবার বন্যা…

মোশারফ হোসেন মুন্না।
রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা বিংশ শতাব্দীর শেষভাগে আবির্ভূত একজন প্রথিতযশা রবীন্দসঙ্গীত শিল্পী। তিনি তাঁর ঘরানার সঙ্গীতের একজন বহুমুখী প্রতিভা হিসাবে বাংলাদেশ এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ব্যাপকভাবে সমাদৃত। তিনি তাঁর গুনানুরাগীদের কাছে শুধু মাত্র ‘বন্যা’ নামেও পরিচিত। কনিকা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শিষ্যদের মধ্যে তাঁকেই সবচেয়ে জনপ্রিয় গণ্য করা হয়। সাহিত্য ও সংস্কৃতি ক্ষেত্রে কাজের অবদানের স্বীকৃতি তিনি বাংলাদেশের জাতীয় এবং সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার “স্বাধীনতা পুরুষ্কার” অর্জন করেছেন।
৩০ এপ্রিল ‘ত্রিতাল মিউজিক অ্যান্ড ড্রামার’ ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হয় রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার গাওয়া ‘ঐ আকাশটা যত বড়, যত বড় বাতাসের উঠান’ শিরোনামের একটি গান। বন্যা মানেই রবীন্দ্র সঙ্গীত এটা সবাই জানেন। কিন্তু এই গানটি মূলত দেশাত্মবোধক। আর গানটির কথা ও সুর স্রষ্টা হলেন দেশের শীর্ষ সাংবাদিক সংগঠন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) এর সভাপতি মোল্লা জালাল। সাংবাদিক নেতা হলেও মোল্লা জালাল একজন সংস্কৃতিপ্রেমী মানুষ। স্বাধীনতার স্বপক্ষ শক্তির একজন আদর্শ দেশ প্রেমিক। এই গানটির মাধ্যমে তিনি তার দেশপ্রেমের প্রতিফলন ঘটিয়েছেন। গানটি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, দেশপ্রমিকদের জন্য প্রাতঃ সঙ্গীতের মতো এই গান। জন্মভূমি আমাদের কত কি দিয়েছে, জীবনের পরতে পরতে সন্ধান করলে তা অনুভব করা যায়। জন্মভূমির প্রতি এই উপলব্ধিই বড় পুন্যি। রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যাও খুব দরদ মাখা কন্ঠে গানটি গেয়েছেন। মিউজিক কম্পোজিশনও হয়েছে খুব হৃদয়ছোঁয়া। শ্রোতাদের ভালো লাগবে গানটি। সবচেয়ে বড় কথা ‘ঐ আকাশটা যত বড়, যত বড় বাতাসের উঠান’ গানটি শুনলে মনের মাঝে দেশাত্মবোধ জেগে ওঠে। এটাই হলো একজন গান স্রষ্টা কিংবা শিল্পীর বড় সার্থকতা।

বন্যা বলেন রবীন্দ্র সঙ্গীতের বাইরে আমি তেমন গান করিনা। তবে এই গানটা করার পিছনে আমার ভালো লাগা সবচেয়ে বেশি কাজ করেছে। আমরা যারা গান করি সবাই দেশের জন্যই করি। দেশের মানুষের জন্যই গান করি। আর এটা হচ্ছে দেশের একটি গান। যা একজন শিল্পীর কাছে গাওয়া স্বার্থকতার এক সোপান আমি মনে করি। আমার শ্রোতাদর্শক গানটি শুনলে ভালো লাগবে বলে আশা করি। সবার সুন্দর সুস্থ জীবন কল্যান কামনা করি।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *