Press "Enter" to skip to content

বাবার প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা…

আজ বিশ্ব বাবা দিবস, বাবার প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা। পৃথিবীর অনেক দেশেই জুন মাসের তৃতীয় রবিবার এই দিবসটি পালিত হয়। পিতা এবং সন্তানের সম্পর্ক সবসময় অনেক গভীর, এক মহামায়ার রক্তের টান।পিতা-সন্তানের সম্পর্ক অনেক যত্নশীল মমতার চিরন্তন বন্ধন।
যদিও বাবাকে ভালোবাসার জন্য কোন দিবস এর প্রয়োজন হয় না, তবু পৃথিবীর সকল স্মরণীয় দিনের মতো মতো বিশেষ একটি দিন থাকলে ক্ষতি কি ?

বিশ্বব্যাপী আজ প্রতিটি সন্তান নিজের মত করে উদযাপন করবেন এই দিবসটি। ‘বাবা’ শব্দটাই আসলেই হৃদয়ের আবেগে কম্পন ধরানো এক শব্দ। আর এই ‘বাবা’ ই হয়ে ওঠেন তার সন্তানের কাজের মূল প্রেরনা। যেমন দেশের বিখ্যাত ব্যান্ডশিল্পী শাফিন আহমেদ ও হামিন আহমেদ এর বাবা কমল দাশ গুপ্ত। যিনি নিজেও ছিলেন একজন সঙ্গীত পরিচালক, সুরকার ও ফোক গানের শিল্পী। কিংবা বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় শিল্পী বাপ্পা মজুমদার ও পার্থ মজুমদার, তাদের বাবাও ছিলেন নিজের ছেলের সঙ্গীত গুরু কিংবা প্রেরনা যাই বলি। তিনি আমাদের সবার শ্রদ্ধেয় বারীন মজুমদার। এছাড়াও রয়েছেন জনপ্রিয় শিল্পী আগুন এর বাবা, প্রখ্যাত খান আতাউর রহমান। রয়েছেন মানাম আহমেদ এর বাবা মনসুর আহমেদ। আমরা শ্রদ্ধা ভরে শ্মরণ করি ফেরদৌসি রহমান এবং মোস্তফা জামান আব্বাসী এর বাবা আব্বাস উদ্দিন আহমেদ -কে। জনপ্রিয় নজরুল সংগীত শিল্পী ফেরদৌস আরার বাবা এ. এইচ. এম. আব্দুল হাই-কে। যিনি নিজেও ছিলেন পঞ্চাশ দশক এর একজন ক্ল্যাসিক্যাল শিল্পী। আমরা শ্রদ্ধা ভরে শ্মরণ করি বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় শিল্পী  নুসরাত ফারহা চৌধুরীর বাবা গাজী মাজহারুল আনোয়ার -কে। এছাড়াও রয়েছেন পঞ্চম, সামিনা চৌধুরী ও ফাহমিদা নবীর বাবা মাহমুদুন নবী, বর্তমান সময় এর ক্রেজ হাবীব ওয়াহিদ এর বাবা ফেরদৌস ওয়াহিদ। শায়ান চৌধুরী অর্নব এর বাবা স্বপন চৌধুরী -কে। যিনি আমাদের মুক্তিযুদ্ধ এর জন্য গান গেয়েছেন। এযুগের জনপ্রিয় শিল্পী হৃদয় খান -এর বাবা প্রতিষ্ঠিত জিংগেল কিং রিপন খান। এছাড়াও এসময়ের সঙ্গীত পরিচালক শিল্পী খৈয়ম শানু সন্ধি -র বাবা খোদা বক্স সানু যিনি ছিলেন শিল্পী, সুরকার ও সঙ্গীত শিক্ষক। শুধু দেশ -ই নয়, দেশের বাইরের বিভিন্ন শিল্পীদের জন্যও তাদের প্রেরনা, গুরু কিংবা শিল্পী স্বপ্নের উৎস তাদের বাবা-ই।। তাই বাবাদের নিয়ে রবিবারে বাবা দিবসে গান গেয়েছেন লুথার ভেন্ডারস, বিওন্সে, মাইলি সাইরাস, লিল ওয়েন প্রমুখ।

বিশ শতকের গোড়ার দিকে ‘বাবা দিবস’ পালন শুরু হয় যুক্তরাষ্ট্রে। বিশ্বে একেকটি দেশ একেক দিন বাবা দিবসটি পালন করলেও বাংলাদেশসহ এশিয়া ও ইউরোপের অধিকাংশ দেশ জুন মাসের তৃতীয় রোববার পালন করে দিবসটি। সন্তান সামনে এলে সব ক্লান্তি যেন ভুলে যান বাবা। সন্তানের চাওয়াই যেন তাঁর চাওয়া হয়ে ওঠে। বাবাকেই আদর্শ মনে করে সন্তানরা। বাবা সন্তানকে শেখান, কীভাবে মাথা উঁচু করে পৃথিবীতে টিকে থাকতে হয়। বাবা মানেই যেন একটি পরম ছায়ার বটবৃক্ষ। বাবা মানে যেন মসৃণ চলার পথ। আর সন্তান যখন বাবা বলে ডাকে এই মধুর ডাকটিই বাবার বুকে লুকিয়ে থাকা সব ব্যথা ভুলিয়ে দেয়। তাই এই ‘বাবা দিবসে’ আমরাও শ্রদ্ধাভরে স্মরন করি সকল ‘বাবা’দের, যারা তাদের সন্তানদের মাঝে ছড়িয়ে দিয়ে গিয়েছেন গান এর আলো আর শিল্পী সত্ত্বা। সঙ্গীতাঙ্গনের পথ চলায় এটাই আমাদের কাম্য, বাবাই হোক তার সন্তান এর আদর্শ লিপি।

 

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *