গুরুতর অসুস্থ্য শিল্পী বারী সিদ্দিকী…

বাংলাদেশের খ্যাতিমান সঙ্গীত শিল্পী, গীতিকার ও বংশী বাদক বারী সিদ্দিকি। তিনি মূলত, গ্রামীণ লোকসঙ্গীত ও আধ্যাত্মিক ধারার গান করে থাকেন। তিনি তার গাওয়া শুয়া চান পাখি, আমার গায়ে যত দুঃখ সয়, সাড়ে তিন হাত কবর, তুমি থাকো কারাগারে, রজনী প্রভৃতি গানের জন্য সবচেয়ে বেশি পরিচিত।

বারী সিদ্দিকী ১৯৫৪ সালের ১৫ নভেম্বর বাংলাদেশের নেত্রকোনা জেলায় এক সঙ্গীতজ্ঞ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। শৈশবে পরিবারের কাছে গান শেখায় হাতেখড়ি হয়। মাত্র ১২ বছর বয়সেই নেত্রকোনার শিল্পী ওস্তাদ গোপাল দত্তের অধীনে তার আনুষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ শুরু হয়। তিনি ওস্তাদ আমিনুর রহমান, দবির খান, পান্নালাল ঘোষ সহ অসংখ্য গুণী শিল্পীর সরাসরি সান্নিধ্য লাভ করেন। ওস্তাদ আমিনুর রহমান একটি কনসার্টের সময় বারি সিদ্দিকীকে অবলোকন করেন এবং তাকে প্রশিক্ষণের প্রস্তাব দেন। পরবর্তী ছয় বছর ধরে তিনি ওস্তাদ আমিনুর রহমানের অধীনে প্রশিক্ষণ নেন। সত্তরের দশকে জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাথে যুক্ত হন। ওস্তাদ গোপাল দত্তের পরামর্শে ক্লাসিক্যাল মিউজিক এর উপর পড়াশোনা শুরু করেন। পরবর্তী সময়ে বাঁশির প্রতি আগ্রহী হয়ে ওঠেন ও বাঁশির ওপর উচ্চাঙ্গসঙ্গীতে প্রশিক্ষণ নেন। নব্বইয়ের দশকে ভারতের পুনে গিয়ে পণ্ডিত ভিজি কার্নাডের কাছে তালিম নেন। দেশে ফিরে এসে লোকগীতির সাথে ক্লাসিক মিউজিকের সম্মিলনে গান গাওয়া শুরু করেন।

তিনি গোপাল দত্ত এবং ওস্তাদ আমিনুর রহমান থেকে লোক এবং শাস্ত্রীয় সঙ্গীতে পাঠ নিয়েছেন। মূলত, বংশী বাদক বারী সিদ্দিকী নব্বুইয়ের দশকে সঙ্গীত জগতে প্রবেশ করেন এবং অল্পদিনেই বিরহ-বিচ্ছেদের মর্মভেদী গানের মধ্য দিয়ে সাধারণ মানুষের হৃদয়ে স্থায়ী আসন করে নেন। ১৯৯৫ খ্রিস্টাব্দে বারী সিদ্দিকী প্রখ্যাত সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের ‘রঙের বাড়ই’ নামের একটা ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানে জনসমক্ষে প্রথম সঙ্গীত পরিবেশন করেন। এরপর ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দে হুমায়ূন আহমেদের রচনা ও পরিচালনায় নির্মিত শ্রাবণ মেঘের দিন চলচ্চিত্রে ৭টি গানে কণ্ঠ দেন। এর মধ্যে “শুয়া চান পাখি” গানটির জন্য তিনি অতিদ্রুত ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেন। ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দে জেনেভায় অনুষ্ঠিত বিশ্ব বাঁশি সম্মেলনে ভারতীয় উপমহাদেশ থেকে একমাত্র প্রতিনিধি হিসেবে তিনি অংশগ্রহণ করেন।

বারী সিদ্দিকী বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্রের গানে কণ্ঠ দিয়েছেন ও গানের কথা লিখেছেন। কিন্তু যখনই রাতের আলো আর দিনের আধার কারো সাথে অভিমান করে ঠিক তখনই দুঃখের ছায়া এসে জীবনে জড়িয়ে যায়। ঠিক তেমন অবস্থা প্রিয় শিল্পী বারী সিদ্দিকির বেলায়। তিনি তার জীবনের সঙ্গীত দিয়ে বেধে নিয়েছেন ভক্তের প্রাণ। সেই মানুষটি আজ শুনলাম রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে লাইফ সাপোর্ট এ আছেন। তার ছেলে সাব্বির সিদ্দিকি এর কাছ থেকে পাওয়া তথ্য হলো, তিনি বলেন আমার বাবা দুই বছর ধরে কিডনি সমস্যায় ভুগছেন ডাক্তার বলেছেন উনার নাকি দুটি কিডনিই অকার্যকর হয়ে গেছে। গত এক বছর ধরে বাবার কিডনি ডায়ালাইসিস করানো হয়। গতকাল শনিবার বাবা শাহবাগ জাতীয় যাদুঘরে যান সন্ধ্যায়। সেখান থেকে ফেরে রাত দশটায় কিন্তু তখন কোন সমস্যার কথা বলেনি। কিন্তু মধ্যরাতে তিনি হঠাৎ গুরুতর ভাবে অসুস্থ হয়ে পরে। অচেতন অবস্থায় তাকে হাসপাতাল নেওয়া হয়। ডাক্তার এখনও কোন আশার কথা বলেনি। সবার কাছে আমার বাবার জন্য দোয়া চাই সবাই উনার জন্য দোয়া করবেন। আমরা ও সঙ্গীতাঙ্গন এর পক্ষ থেকে প্রখ্যাত শিল্পী বারী সিদ্দিকির জন্য দোয়া চাই। তিনি যেন সুস্থ্য হয়ে আমাদের কাছে ফিরে আসেন। – মোঃ মোশারফ হোসেন মুন্না

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: